আজ  শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

আবাসিক হোটেল থেকে ৬ পতিতাসহ ১০জন গ্রেফতার

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার মহাস্থান বাসট্যান্ড বন্দরে আবাসিক হোটেল ব্যবসার অড়ালে বেশ কয়েকটি হোটেলে ‘মিনি পতিতালয়’ খুলে দীর্ঘদিন ধরে অসামাজিক কার্যকলাপ চালাচ্ছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী মহল।

এরই ধারাবাহিকতায় রোববার দুপুর ২টায় মহাস্থান বাসট্যান্ডের মৌবণ আবাসিক হোটেলে শিবগঞ্জ থানার এসআই শহিদুলের নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। এসময় আবাসিক হোটেলের ২য় ও ৩য় তলায় তল্লাশি চালিয়ে রুমের বিভিন্ন কক্ষে লুকিয়ে থাকা ৬ পতিতা, ২ খদ্দের ও ম্যানেজারসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, বাগেরহাটের শরণখোলার পান্না হাওলাদারের মেয়ে তানিয়া (২০), শরিয়তপুরের কচুকাটার নান্নু মিয়ার মেয়ে মালা খাতুন (২৫), গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার কায়ুম শেখের মেয়ে মুন্নি আক্তার (২৫), কেরানীগঞ্জের দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে কবিতা রানী (২২), নওগাঁর কালিতলার শাহাদত হোসেনের মেয়ে শারমিন আক্তার (২১), সাতক্ষিরার আজগর আলীর মেয়ে প্রিয়া আক্তার (২০)।

এছাড়া রয়েছেন, মৌবন আবাসিক হোটেল ম্যানেজার আবুল কাসেমের ছেলে নয়ন মিয়া (৩০), সহকারী ম্যানেজার মোজাম উদ্দিনের ছেলে আনিছার রহমান, খদ্দের শিবগঞ্জ থানার রহবল গ্রামের মিনহাজ উদ্দীন (২৫), বগুড়ার হরিপুর গ্রামের শ্রী বাদল চন্দ্রদাসের মেয়ে শ্রী প্রিমা (২৬)।

স্থানীয়রা জানায়, মৌবণ আবাসিক হোটেলসহ আশেপাশের বেশকিছু আবাসিক হোটেলের নামে দীর্ঘদিন ধরে অসামাজিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিলো। আগেও বেশ কয়েকবার পুলিশ মৌবণ আবাসিক হোটেল অভিযান চালিয়ে পতিতা ও খদ্দেরসহ হাতেনাতে ধরে থানায় নিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করে। কিছুদিন বন্ধ থাকার পর অদৃশ্য ক্ষমতার জোরে আবাসিক হোটেলটিতে আবারও অবৈধ কর্মকাণ্ড শুরু হয়।

ঐতিহাসিক মহাস্থানগড়ে হযরত শাহ সুলতানের মাজারের পাশে অভিযুক্ত মৌবণ আবাসিক হোটেলে রাতদিন অবৈধ এসব কর্মকাণ্ড চললেও যেন দেখার কেউ নেই। প্রকাশ্যে এ ধরণের কর্মকাণ্ডে স্থানী এলাকাবাসীদের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। এলাকাবাসীর ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশে রোববার দুপুরে হোটেলে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এদিকে পুলিশের অভিযানের পর হোটেলটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করতে ও সিলগালাসহ অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে স্থানীয় সচেতন মহল।