আজ  শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮

উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে : ত্রাণ মন্ত্রী

মতলব উত্তরে বিশাল জনসভায়

1

আরাফাত আল-আমিন :
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপি বলেছেন, খালেদা জিয়া মানুষ তো খায় খায় গাছকেও ছাড়েনি। গত নির্বাচনে বিএনপি জ্বালাও পোড়াও করে মানুষ তো পুড়িয়ে মেরেছে, সেই সাথে গাছগুলো কেটে সাবাড় করে দিয়েছে বিএনপি জামায়াত। মন্ত্রী বলেন, আর জ্বালাও পোড়াও করে দেশে থাকা যাবে না। আগামী ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগন আওয়ামীলীগকেই ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনবে। দেশের মানুষ আজ বুঝে গেছে আওয়ামীলীগ ছাড়া প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। শনিবার বিকালে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার সুজাতপুর বাজার সংলগ্ন মমরুজকান্দি সপ্তগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে উপজেলা আওয়ামীলীগ কর্তৃক ৬টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথি বক্তব্যে ত্রাণ মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী মায়া চৌধুরী সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরে বলেন, খালেদা জিয়ার আমলে মাত্র ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল। এখন দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে ১৬ হাজার মেঘাওয়াট। এটা সম্ভব হয়েছে শুধু শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বে কারণেই। তিনি খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, দেশের টাকা চুরি করে বিদেশে পাঠিয়েছেন। এই চুরির মামলা থেকে আপনার রক্ষা নেই। জনগণ এখন সুখে আছে শান্তিতে আছে। পেট ভরে খেতে পারে। ত্রাণ মন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের সড়কে অবস্থান করছে। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে। বিএনপি জামায়াত যতই ষড়যন্ত্র করুক তাদের কোন ষড়যন্ত্রই সফল হবে না। বিএনপি সবসময়ই পিছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায়। তাদের এই দিবা স্বপ্ন কখনোই পূরণ হবে না। তিনি মতলবের উন্নয়ন তুলে ধরে বলেন, মতলবে এখন আজ উন্নয়ন করার জায়গা খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। সকল রাস্তাঘাট, স্কুল কলেজ উন্নয়ন শেষ পর্যায়ে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা বলেছেন ২০১৮ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দিবেন। আর আমি বলছি এ বছরের জুন মাসের মধ্যে মতলব উত্তর ও দক্ষিণ উপজেলার প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দিয়ে সরকারের অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করবো। তিনি সকল নেতাকর্মীদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান। এসময় তিনি মমরুজকান্দি সপ্তগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ ভরাট ও একটি একাডেমিক ভবন নির্মাণ করে দেওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

2
উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস এর সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম হাওলাদারের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী সাজেদুল হোসেন চৌধুরী দিপু। আরো বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য রিয়াজ উদ্দিন মানিক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল, ত্রাণ মন্ত্রীর সহধর্মিনী পারভীন চৌধুরী, মতলব উত্তর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা সুবর্ণা চৌধুরী বীনা, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক আইয়ুব আলী গাজী, কবির হোসেন মাস্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান প্রধান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম সরকার ইমন, ছেঙ্গারচর পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলম জজ, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাম্মেল হক, ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক কাজী সালাউদ্দিন, ফতেপুর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ, ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আলাউদ্দিন সরকার, উপজেলা মহিলা আ’লীগের সভাপতি পারভীন শরীফ, ইসলামাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান সাজেদুল হাসান বাবু (বাতেন), ইসলামাবাদ ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুল কবির জসিম উদ্দিন সরকার, সুলতানাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মনজুর মোর্শেদ স্বপন, সুলতানাবাদ ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান, দূর্গাপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মাহবুব হোসেন, সাধারন সম্পাদক মমিন দেওয়ান, বাগানবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান নান্নু মিয়া, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি দেওয়ান জহির, সাধারন সম্পাদক কাজী শরীফ, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক ও জেলা পরিষদের সদস্য মিনহাজ উদ্দিন, যুগ্ম-আহ্বায়ক তামজিদ সরকার রিয়াদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সদস্য সচিব এড. আকতারুজ্জামান প্রমূখ।

জসভায় হাজার হাজার জনতার ঢল নামে। ইসলামাবাদ, সুলতানাবাদ, দূর্গাপুর, বাগানবাড়ি, ফতেপুর পূর্ব ও ফতেপুর পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মিছিলে মিছিলে জনসভায় যোগদান করেন।