আজ  বুধবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮

কাতালানদের স্বাধীনতার গণভোট রোববার, বার্সেলোনায় র‌্যালি

8

অনলাইন ডেস্ক: স্বাধীনতার প্রশ্নে রোববার (১ অক্টোবর) গণভোট করতে যাচ্ছে স্পেনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল কাতালোনিয়া। মাদ্রিদ কর্তৃপক্ষ এই গণভোটের তীব্র বিরোধিতা করে এলেও শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) এর সমর্থনে আঞ্চলিক রাজধানী বার্সেলোনায় বর্ণাঢ্য র‌্যালি করেছে হাজারো কাতালান। শনিবারও (৩০ সেপ্টেম্বর) এমন র‌্যালি আয়োজনের কথা রয়েছে।

স্পেন সরকার এই গণভোট ঠেকানোর জন্য কাতালোনিয়াজুড়ে অজস্র অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন করেছে। তবে আঞ্চলিক প্রেসিডেন্ট কার্লেস পুইগডেমন্ট জনতাকে বলেছেন, সার্বভৌম জাতি হিসেবে কাতালোনিয়া প্রথম কোনো পদক্ষেপ নেবে রোববার।

স্পেনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ভূমধ্যসাগর তীরবর্তী প্রায় ২০ হাজার বর্গ কিলোমিটারের কাতালোনিয়ায় রয়েছে ৭৫ লাখ মানুষের বসবাস, যা স্পেনের মোট জনগণের ১৬ শতাংশ। স্পেন থেকে যা রপ্তানি হয়, তার ২৫.৬ শতাংশ রপ্তানি হয় এই অঞ্চল থেকে। স্প্যানিশ জিডিপিতে কাতালোনিয়ার অবদান ১৯ শতাংশ। স্পেনে বিদেশি বিনিয়োগের ২০.৭ শতাংশ যায় এই অঞ্চলে।

নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতির কাতালানরা সর্বোচ্চ স্বায়ত্তশাসনের অধিকার ভোগ করলেও সাংবিধানিকভাবে পৃথক রাষ্ট্র হতে পারছে না। এখানকার আঞ্চলিক সরকার গত প্রায় পাঁচ বছর ধরেই আলাদা রাষ্ট্র গঠনের চাপ হজম করছে জনগণের। ২০১৫ সালের আঞ্চলিক নির্বাচনে স্বাধীনতাপন্থি দল বিজয়ী হলে এই চাপ আরও স্পষ্ট হয়।

তবে স্বাধীনতার দাবিতে কাতালানরা সরব হওয়ার পর থেকেই বিরোধিতা করে আসছে স্প্যানিশরা। এই বিরোধিতার মধ্যেই ২০১৪ সালে কাতালানরা পরীক্ষামূলক গণভোট করলে তার ফলাফলকে উড়িয়ে দেন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাজয়। তিনি সেসময় বৈধ উপায়ে গণভোট আয়োজনের আবদারও না মানার কথা সাফ জানিয়ে দেন।

এই ধারাবাহিকতায় রোববার অনুষ্ঠেয় গণভোটকে সামনে রেখে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘স্প্যানিশ জাতির অবিচ্ছেদ্য ঐক্য এবং একক ও অবিভাজ্য মাতৃভূমিতে ফাটল ধরানোর এই গণভোট সংবিধানবিরোধী। এ ধরনের ভোট কখনোই গ্রহণযোগ্য হবে না।’

প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের পর পুলিশকে নির্দেশনা দিয়ে বলা হয়েছে, গণভোটের জন্য ব্যবহারে নির্ধারিত সরকারি ভবনগুলো যেন ঘিরে রাখা হয়, যাতে ভোট সংশ্লিষ্টরা