আজ  মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরের সরকারি এনিম সম্পত্তি রাতের আধারে দখলের চেষ্টা, অবশেষে প্রশাসনিক হস্তক্ষেপে ব্যবস্থা

চাঁদপুর শহরের মিশন রোডস্থ রামকৃষ্ণ আশ্রম সংলগ্ন গিরিধাম নামক সরকারি এনিমি ভবন রাতের আধারে তালা ভেঙ্গে জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা করে ভূমিদস্যুরা।
গতকাল মঙ্গলবার রাত ১১টায় আকস্মিকভাবে সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানার নেতৃত্বে তার ভাই ও কিছু দখলবাজ লোক এসে দখল করার চেষ্টা চালাছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
সরকারি এনিমি সম্পত্তির উপর স্থাপিত গিরিধাম ভবনের তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে মালামাল সরিয়ে নিয়ে ইট বালু সিমেন্ট এনে কাজ করার প্রস্তুতি নেয়।
সরকারি ভবন দখল করার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক আব্দুল্লাহ আল মাহামুদ জামান,এডিসি রাজস্ব অসীম চন্দ্র বণিক সহ জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের ম্যাজিস্ট্রেট ও আনসার বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দখলবাজদের বের করে দেয়।
বাংলা ১৩৪৩ সালে গিরিধাম ভবনটি এক হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক স্থাপন করে বসবাস শুরু করেন।
১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় এই ভবনটির মালিক সপরিবার নিয়ে ভারতে পালিয়ে যায়।
অবশেষে গিরিধাম ভবনের সাড়ে ছয় শতাংশ জায়গা এনিমি সম্পত্তি হিসেবে গণ্য হলে সরকার দখল নেয়।
১৯৮৮ সাল থেকে ৩২ বছর জেলাপ্রশাসক কার্যালয়ের সাবেক সি এ মোঃ ওয়াজিউল্ল্যাহ সপরিবারে বসবাস করে আসছে।
এই সরকারি সম্পত্তি নিজেদের দাবি করে চাঁদপুর সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবেদা সুলতানার বাবা চাঁদপুর আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।
সেই মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী তথ্য গোপন করে বিচারককে ভুল বুঝিয়ে এনিমি সম্পত্তি নিজেদের দাবি করে রায় নিয়ে আসেন।
আদালত থেকে রায়ের কাগজ না নিয়ে রাতের আধারে সরকারি ভবন দখলের চেষ্টা চালায় বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসকের নির্ভরযোগ্য কর্মকর্তারা।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সাবেক সি এ মোঃ ওয়াজিউল্ল্যাহ ব্যক্তিগত কাজে ঘরে তালা মেরে বাইরে গেলে সেই সুযোগে ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানার লোকজন তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে।
তাৎক্ষণিক ইট বালু সিমেন্ট এনে কাজ করার চেষ্টা চালায়। এ সময় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সাবেক সি এ মোঃ ওয়াজিউল্ল্যাহ বাসায় এসে দখলবাজদের দেখে তাৎক্ষণিক জেলা প্রশাসককে মুঠোফোনে অবহিত করেন।
সাথে সাথেই অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। দখলবাজদের বের করে দিয়ে তারা পুনরায় নিজেদের দখলে নিয়ে নেয়।
এ সময় বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট হেলাল রাতেই ঘটনাস্থলে আসলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান সাথে এই সম্পত্তির বিষয়ে কথা হয়।
এ সময় আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান জানান, সরকারি এনিমি সম্পত্তি কোন অবস্থাতেই  দখল করতে দেওয়া হবে না।
যারা সরকারি ভবন নিজেদের দাবী করে দখল করার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ বিষয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানার মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে মোবাইল বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।