আজ  শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থাপনা নির্মাণ, গাছপালা কেটে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা

চাঁদপুর হাজীগঞ্জ উপজেলার বেদিয়াপাড়া গ্রামের মজুমদার বাড়িতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোরপূর্বক ভাবে মতিন মজুমদারের সম্পত্তি উপর স্থাপনা নির্মাণ করে দখল করার পাঁয়তারা করছে।
আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে ভূমিদস্যুরা আব্দুল মতিন মজুমদার গংদের শতাধিক গাছ কেটে নিয়েছে। এ সবাই বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে ১০জনকে আহত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।
৫ নং হাজীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের বেতিয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল মতিন মজুমদার গংদের সাথে মিজানুর রহমান গংদের ২ একর ৬২ শতাংশ সম্পত্তি নিয়ে দীর্ঘ বছর যাবৎ বিরোধ চলে আসছিল।
এই সম্পত্তির সাবেক ১৪১ নং হাল ৪৩ নং বেতিয়াপাড়া মৌজার সিএস ৪০, আরএস ৪১, বিএস ৪২ খতিয়ান অনুযায়ী ২ একর ৬২ শতাংশ আব্দুল মতিন মজুমদার, মোরশেদ আলম মজুমদার, ফিরোজ আলম মজুমদার, সাবিনা খাতুন, হিরা বিবি গংরা মালিক হন।
সেই সম্পত্তি দাবিদার হয়ে ১৯৮১ সালে চান বানু বাদী হয়ে আদালতে একটি বাটোয়ারা মামলা দায়ের করেন।
১৯৮৬ সালে মতিন মজুমদার গংদের পক্ষে আদালত রায় দেন।
আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে বাদী পক্ষ আপিল করলে ২০১০ সালে হাইকোর্ট মামলাটি খারিজ করে দেন।
এর পরেই মৃত হাবিবুর রহমানের চার ছেলে ও মেয়ে হাওয়া বিবি গোপনে কাউকে বুঝতে না দিয়ে চাঁদপুর আদালতে নিজেদের সম্পত্তি দাবি করে এক তরফা ডিক্রি জারি মোকদ্দমা করেন।
পরে আব্দুল মতিন মজুমদার জেলা দায়রা জজের শরণাপন্ন হয়ে একটি স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা মামলা দায়ের করেন।
চাঁদপুর জেলা দায়রা জজ জুলফিকার আলী খান মার্চ মাসের ১৫ তারিখে জায়গা উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
কিন্তু প্রতিপক্ষ মৃত হাবিবুর রহমানের মেয়ে হাওয়া বিবির পেশী শক্তি ব্যবহার করে ও তার প্রভাব খাটিয়ে জোরপূর্বক ভাবে সম্পত্তির উপর স্থাপনা নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
খবর পেয়ে হাজিগঞ্জ থানা পুলিশ তিনবার ঘটনাস্থলে এসে কাজে বাধা দেয়। পুলিশ যাওয়ার পরেই তারা হাওয়া বিবির নেতৃত্বে সন্ত্রাসী পাহারায় আবারো স্থাপনা নির্মাণের কাজ শুরু করে।

এই ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, হাবিবুর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম, বাবুল মজুমদার, স্বপন মজুমদার ও মেয়ে হাওয়া বিবি জোরপূর্বক ভাবে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে প্রায় শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে নিয়ে যায়। এ সময় তাদেরকে বাধা দিলে তারা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে আহত করে।
তাতেও তারা ক্ষান্ত না হয় চলাচলের রাস্তায় বেড়া দিয়ে ও বসত ঘরে তালা লাগিয়ে দখলের চেষ্টা করে। সারা দেশব্যাপী করোনা ভাইরাস কথা বলায় সরকার যখন সকল কর্মযজ্ঞ বন্ধ ঘোষণা করেন ঠিক সে সময় এই ভূমিদস্যুরা জবরদখল করে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থাপনা নির্মাণের কাজ চালিয়ে যায়।
হাবিবুর রহমানের মেয়ে হাওয়া বিবি হাজীগঞ্জের রাজনৈতিক দলের এক নেতার ছেলের কাছে তার মেয়ে বিয়ে দেয়। সেই রাজনৈতিক দলের নেতার প্রভাব খাটিয়ে আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে অবৈধভাবে ভবন নির্মাণের কাজ চালিয়ে যায়। পুলিশ যখন এসে কাজ করতে বাধা দেয় ঠিক তখনই হাওয়া বিবি তার মেয়ের শ্বশুর ওই রাজনৈতিক দলের নেতাকে ফোন ধরিয়ে দেন। এছাড়া সে বিভিন্ন প্রশাসনের নাম ভাঙ্গিয়ে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে জোরপূর্বক ভাবে সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে এনে পাহাড়ায় রেখে অসহায় পরিবারের সম্পত্তি দখল করার পায়তারা করছে।
সম্পত্তি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে ও আদালতের দায়েরকৃত মামলা তুলে না নিলে এই অসহায় পরিবারদের জানে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে।
এই ভূমিদস্যুদের হাত থেকে রেহাই পেতে চাই ও দীর্ঘদিনের এই সমস্যার সমাধান চাই।