আজ  সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০

চাঁদপুরে কবরের জায়গায় বেড়া দেওয়ায় সংঘর্ষ, মহিলা সহ আহত ৪

 

চাঁদপুর সদর উপজেলা ৩ নং কল্যাণপুর ইউনিয়নের কবরের জায়গা বেড়া দেওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় শিকার হয়ে মহিলা সহ ৪ জন গুরুতর আহত হয়েছে।
এই ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে কল্যানপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড কল্যান্দী গ্রামের বকাউল বাড়িতে।
বৃহস্পতিবার চাঁদপুর মডেল থানার এএসআই সাখাওয়াত সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করেন।
পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হামলাকারী মৃত আহসানুল্লাহ বকাউল এর ছেলে আতিকুর রহমান, আরিফুর রহমান ও আরিচ বকাউল বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়।
এদিকে হামলার শিকার হওয়া সুখী বেগম, পারুল বেগম ,সুখী আক্তার ও আবুল হোসেন চাঁদপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়।
এই ঘটনায় আবুল হোসেন বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে হামলাকারী এলাকা চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আরচি বকাউল বাঁদিকে জানে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে।
এ ঘটনায় এলাকায় অসহায় পরিবার গুলো নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এই বিষয়ে হামলার শিকার হওয়া আবুল হোসেন জানায়, হামলাকারীরা এলাকা চিহ্নিত মাদক সেবনকারী ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। কিছুদিন পূর্বে আমার চাচি সুফি বেগম তার নিজের জায়গায় টয়লেট করার সময় এই হামলাকারী আরিচ বকাউল এসে বাধা দেয় ও চাঁদা দাবি করে।
এরপর আমার বাবার কবর স্থানের উপর দিয়ে হাঁটাচলা করার কারণে কবর সুরক্ষিত রাখার জন্য বেড়া দেওয়া হয়। কবরে বেড়া দেওয়াকে কেন্দ্র করে আতিকুর রহমান ও তার ভাই আরিচ বকাউল বাবার কবরের সামনে রেখে বেদম মারধর করে। এসময় তিন চাচি বাঁচানোর জন্য দৌড়ে আসলে তাদেরকেও বেদম মারধর করে গুরুতর আহত করে। এই ঘটনায় স্থানীয় সেলিম মেম্বারকে অবহিত করলেও এ সমাধান না পেয়ে থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়। মূলত কবরের জায়গায় বেড়া দেওয়া ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে তারা এই ঘটনাটি ঘটেছে। হামলাকারীরা আমাদের জায়গা দখল করে এলাকা থেকে উচ্ছেদ করার পায়তারা করছে। আমরা এই হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানাচ্ছি।
চাঁদপুর মডেল থানার এসআই সাখাওয়াত জানায়, কবরের জায়গায় বেড়া দেওয়াকে কেন্দ্র করে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে তা খুবই দুঃখজনক। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কোন অবস্থাতেই তাদেরকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়া হবে না।
এই ঘটনায় অভিযুক্তদের বাড়িতে গিয়ে তাদের না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

শাহরিয়ার খান কৌশিক, মো,০১৭১৩৬৮৮৯২০