আজ  শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরে পুলিশের হ্যান্ডকাপ ছিনতাই ৩ ঘন্টা পর উদ্ধার, সন্ত্রাসী হামলায় আহত ৬,থানায় অভিযোগ

 

চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২ নং চান্দ্রা ইউনিয়নে পুলিশের উপস্থিতিতে সন্ত্রাসী হামলায় মহিলা সহ ছয়জন আহত করেছে।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ হস্তক্ষেপ করলে সন্ত্রাসীরা পুলিশের উপর হামলা চালায় এবং পুলিশের হ্যান্ডকাপটি ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
প্রায় তিন ঘণ্টা পর অবশেষে পুলিশের ছিনতাই হওয়া হ্যান্ডকাপ উদ্ধার করা সম্ভব হয়।
বৃহস্পতিবার বিকেলে চান্দা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড মধ্য বাখরপুর সিরাজ গাজীর বাড়িতে এই হামলার ঘটনা ঘটে।
এই ঘটনায় পুলিশের কাছ থেকে হ্যান্ডকাপ ছিনিয়ে নেওয়া আসামি কাজল গাজীর ছেলে ওসমান গাজী ও কাশেম গাজীর ছেলে আরিফ গাজি সহ ১১ জনকে আসামী করে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
পুলিশের উপস্থিতিতে হামলার শিকার হওয়া সিরাজ গাজী তার মা রাবেয়া বেগম, ছেলে জুয়েল, পারভেজ গাজী, শাকিল গাজী, শিহাব গাজী ও স্ত্রী নাজমা বেগমকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
স্থানীয়রা এলাকাবাসী জানান, মধ্য বাখরপুর গ্রামে শাহজাহান গাজীর কাছ থেকে সিরাজ গাজী প্রায় ৩০ শতাংশ জায়গা ক্রয় করে দখল সূত্রে মালিক হয়ে বসবাস করছেন। সেই জায়গা কাশিম গাজীর ছেলে আরিফ, রাব্বি গাজি এবং ওসমান ও খলিল গাজী নিজেদের দাবি করে দখল করার চেষ্টা করে।
এই ঘটনায় চাঁদপুর আদালতে মামলা দায়ের করা হয়।
এছাড়া জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সিরাজ গাজী চাঁদপুর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।
বৃহস্পতিবার সিরাজ গাজীর ক্রয় কৃত জায়গায় আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে জোরপূর্বক ভাবে কাশেম গাজির ছেলে আরিফ গাজি বসতঘর নির্মাণের কাজ শুরু করে।
এ ঘটনায় সিরাজ গাজী বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগের প্রেক্ষিতে চাঁদপুর মডেল থানার এএসআই ইয়াকুব সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেন।
এ সময় পুলিশ দেখামাত্রই কাসেম গাজী লাঠি নিয়ে এসে বাদি সিরাজের উপর হামলা চালায়।
তারপরেই দুই পক্ষের মাঝে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ও হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দিতে গেলে কাজল গাজীর ছেলে ওসমান গাজী পুলিশের কাছ থেকে হ্যান্ডকাপটি ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।
প্রায় তিন ঘণ্টা পর চেষ্টা চালিয়ে পুলিশের ছিনতাই হওয়া হ্যান্ডকাপটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়। পরে পুলিশ আহত বাদি সিরাজ গাজীকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।
সম্পত্তি দখল ও পুলিশকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় আবারও রক্ত ক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা দেখা দিতে পারে।
আহত সিরাজ গাজীর পরিবারবর্গ জানায়, মধ্য বাখরপুর এলাকার কাসেম গাজী, কাজল গাজী, আবুল গাজী তিন ভাই ও তাদের ছেলেরা এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে সম্পত্তি দখল করার চেষ্টা চালায়।
সিরাজ গাজীর ক্রয়কৃত জায়গা দখল করার জন্য বেশ কয়েকবার সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও হামলা চালায়।
এ ঘটনায় এলাকায় বেশ কয়েকবার সালিশী বৈঠক হলেও তার সমাধান হয়নি অবশেষে আদালত ও থানা পুলিশের আশ্রয় নিলে প্রতিপক্ষরা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য সিরাজ গাজীকে জানে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। নিরীহ ও অসহায় পরিবারের নিরাপত্তার নেই,যে কোনো সময় তারা আবারও হামলা চালিয়ে যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই প্রশাসন যাতে অতি দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে এই ভূমিদস্যু সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান ভুক্তভোগীরা ।