আজ  মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরে বর্ণাঢ্য আয়োজনে মাসব্যাপি বিজয় মেলার উদ্বোধন

 

VideoCapture_20191206-172835চাঁদপুরে ২৮তম মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছে। ৬ ডিসেম্বর শুক্রবার বেলা ১২টায় শহরের লেকের উপর স্থাপিত স্বাধীনতার স্মৃতি স্তম্ভ ‘অঙ্গীকার’-এর সামনে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে চাঁদপুরের গৌরব ও ঐতিহ্যের ২৮তম মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।
শুরুতেই উদ্বোধন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিজয় মেলার প্রধান উপদেষ্টা শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি, উদ্বোধক ও অন্যান্য অতিথিরা অঙ্গীকার বেদীতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।
এরপর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি বিজড়িত স্থান হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিজয় মেলার প্রধান গেটে ফিতা কেটে মেলার উদ্বোধন করেন ষাটের দশকের ছাত্রলীগ নেতা, ‘৬৯-এর গণআন্দোলনের অন্যতম সংগঠক মুক্তিযোদ্ধা মুনির আহমেদ।
উদ্বোধন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, বিজয় মেলার প্রধান উপদেষ্টা ও শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি। উদ্বোধকের বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মুনির আহমেদ।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান, পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুবুর রহমান পিপিএম (বার), জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র আলহাজ নাছির উদ্দিন আহমেদ, মুক্তিযুদ্ধের বিজয়মেলা স্টিয়ারিং কমিটির সভাপতি যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ ওয়াদুদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযুদ্ধের বিজয়মেলার উপদেষ্টান্ডলীর সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাষাবীর এমএ ওয়াদুদের কন্যা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব ডাঃ দীপু মনি এমপি তাঁর বক্তব্যে বলেন, আজকের এই মঞ্চে দাঁড়িয়ে আমি মহান স্বাধীনতার স্থাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুসহ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। পাশাপাশি মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে এদেশের সকল স্বাধীকার ও মুক্তির আন্দোলনে নিহতদের মাগফিরাত কামনা করছি। তাঁদের মহান আত্মত্যাগের বিনিময়েই আজকের এই বাংলাদেশ।
তিনি বলেন, জাতির পিতার ২৩ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের ফসল আজকের এই স্বাধীনতা। কিন্তু জতির পিতা তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে যেতে পারেননি। স্বাধীনতা পরবর্তী পাকিস্তানপন্থীরা জাতির পিতাকে স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। আজকে বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সঠিকভাবে নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধারা যে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে যুদ্ধ করেছিলেন, আজকে সে দিকেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হানিসার নেতৃত্ব এখন গোটা বিশ্ব স্বীকৃত। বাংলাদে সমগ্র সেক্টরে উন্নয়নের রোল মডেল।
তিনি আরো বলেন, আমরা জাতীর পিতার আদর্শকে অনুকরণ করবো। এখন আর আমাদের দেশের জন্যে জীবন দিতে হবে না। শুধুমাত্র যার যার সঠিক দায়িত্বটুকু পালন করলেই হবে। আসুন আমরা প্রতিজ্ঞা করি, দেশের জন্যে আমরা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সবাই এক হয়ে কাজ করবো। কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে বসার আর কোনো সুযোগ নেই। এখন থেকে স্বাধীনতার পক্ষের লোকেরাই বাংলাদেশ নিয়ে সিদ্ধান্ত নিবো।
বিজয় মেলার মহাসচিব হারুন আল রশীদের পরিচালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্টিয়ারিং কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডঃ বদিউজ্জামান কিরণ।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারী, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এএসএম দেলওয়ার আহমেদ, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মন চন্দ্র সুত্রধর,সাকেক সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী প্রমুখ।