আজ  শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরে বিলুপ্তির পথে রসালো খেজুরের রস

   চাঁদপুরের পল্লী এলাকায় শিশির ভেজা ভোরে খেজুর গাছিদের (খেজুর রস বিক্রেতা) হাক-ডাক এখন আর শোনা যায়না। ইটের ভাটায় অবাধে খেজুর গাছ পোড়ানোর ফলেই খেজুরের রস বিলুপ্ত হতে চলছে।
চাঁদপুরে শীতের ঐতিহ্য ছিল মিষ্টি খেজুর রস। মাত্র এক যুগের মাথায় খেজুর রসের স্বাদ ভুলতে বসেছে চাঁদপুরের মানুষ। রসের পায়েস এখন শুধুই স্মৃতি। ১২-১৪ বছর আগে শীতের সকালে চাঁদপুরের পল্লী এলাকায় মানুষের ঘুম ভাঙ্গতো খেজুর গাছিদের (রস বিক্রেতা) হাক-ডাকে। এখন আর সেই ডাক শুনতে পাওয়া যায় না। শীত আসলে গ্রাম্য হাটে খেজুর গুড়ের সেই মনমাতানো ঘ্রাণ এখন আর পাওয়া যায় না।
শীতের তীব্র্রতা বাড়ার সাথে সাথে রসের স্বাদ বেড়ে যেত। চৈত্রের মাঝামাঝি পর্যন্ত রস পাওয়া যেত। শীতের রাতে চুরি করে খেজুর রস খাওয়ার শৈশব স্মৃতি এখনো মনে করেন অনেকে।
তথ্যঅনুসারে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত জেলায় লক্ষাধিক খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করা হতো। রস দিয়ে পিঠে, পায়েশ খাওয়ার পাশাপাশি দেড়‘শ মেট্রিক টন গুড় উৎপাদন করা হতো।
১৯৯৪ সালে ইট ভাটায় কাঠ পোড়ানো নিষিদ্ধ করে খেজুর গাছ ও বাশের মোথা পোড়ানোর অনুমতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারী করা হয়। বাশের মোথা না থাকায় চাঁদপুরের সকল ইট ভাটায় পোড়ানোর জন্য খেজুর গাছ নিধন শুরু হয়। কম দামে অধিকাংশ খেজুর গাছ ইট ভাটার বলি হয়। গত এক যুগে ক্রমেই খেজুর গাছের সংখ্যা কমে যাওয়ার কারণে খেজুর রস কমতে থাকে। ক্রমান্বয়ে এখন তা বিলুপ্ত হওয়ার পথে।
চাঁদপুরের চান্দ্রা ইউনিয়নের খেজুর গাছি হুমায়ুন মিজি জানান, আগে তিনি শীত মৌসুমে ৫৪টি খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করতেন। সংগ্রহীত রস দিয়ে পিঠে, পায়েশ খাওয়ার পাশাপাশি গুড় তৈরী করে বছরে ১০-১২ হাজার টাকা আয় করতেন। কিন্তু এখন সেই খেজুর গাছ নেই। অধিকাংশ গাছ কেটে জমি অন্য কাজে ব্যবহার করেছেন। মাত্র ১০টি গাছ বেঁচে আছে তা থেকে এখন রস কম হচ্ছে।

চান্দ্রা ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান খান জাহান আলি খান পাটোয়ারী বলেন, এক সময় গ্রামগঞ্জে রাস্তার পাশে ও ধান ক্ষেতের আইলে প্রচুর খেজুর গাছ দেখা যেতো। আমরা রাতে গাছ থেকে রস পেরে নাস্তা খেতাম। তাওয়ায় রস জাল দিয়ে গুড় তৈরি করা হতো। সেই গরম গুড় মুড়ি দিয়ে মেখে খেতে খুবই ভালো লাগতো। বিভিন্ন ধরনের পিঠা তৈরি করা হতো। এখন এগুলো শুধুই ইতিহাস। গ্রাম গঞ্জে আগের মতো আর সারিবদ্ধ খেজুর গাছ নেই। ইটভাটার কারণে তা বিলুপ্ত হয়ে গেছে।