আজ  সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০

চাঁদপুরে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম দোকানপাট ভাঙচুর লুটপাট, মামলা করায় প্রাণনাশের হুমকি

 

চাঁদপুর সদর উপজেলার ১৪ নং রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নে দুলাল মাঝি নামে এক কাপড় ব্যবসায়ীকে সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হাত ভেঙ্গে দিয়েছে। হামলা করেও ক্ষান্ত হয়নি সন্ত্রাসীরা তার দোকানপাট ভাঙচুর করে নগদ টাকাসহ ৮ লক্ষ টাকার মালামাল লুটপাট করে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এই ঘটনায় আহত দুলাল মাঝির স্ত্রী সোহাগী বেগম বাদী হয়ে হামলাকারী ইসমত আলী, ফয়সাল গাজী, শরাফত আলী গাজী সহ ৬ জনকে আসামী করে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। থানায় মামলা নং ১৯, তারিখ ২২/৫/২০। ঘটনাটি ঘটেছে ১৪ নং রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড লক্ষীরচর গ্রামের আহত দুলাল মাঝির দোকানের সামনে।
হামলায় আহত দুলাল মাঝি চাঁদপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করায় তারা বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।
মামলার বাদী সোহাগী বেগম জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ ওই এলাকার সন্ত্রাসী ইসমত আলী গংদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল।
দুলাল মাঝি বাজারে কাপড়ের দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরু করলে প্রথম থেকেই তার সাথে বেশ কয়েকবার হামলা করেছে ও বাজার থেকে দোকান ভেঙ্গে উঠিয়ে দিবে বলে হুমকি দেয়। ঘটনার দিন ১৯ তারিখ দুপুরে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ইসমত আলী, ফয়সাল গাজী, শরাফত আলী গাজী, সোহেল গাজী, আক্তার মাঝি ও ওসমান গাজী সহ বেশ কয়েকজন দোকানে গিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালায় এবং দুলাল গাজী হাত ভেঙে দেয় ও তাকে কুপিয়ে জখম করে। এই সময় তার দোকানে নগদ টাকা সহ ৮ লক্ষ টাকার মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়। গুরুতর জখম অবস্থায় স্থানীয়রা দুলাল মাঝিকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করায়।
ঘটনার পর চাঁদপুর মডেল থানার এসআই মোমিনুল সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সাক্ষী নিলে পুলিশের উপস্থিতিতে হামলাকারীরা সাক্ষীদের ওপর চড়াও হয় ও তাদেরকে ধাওয়া করে।
এদিকে আহত দুলাল মাঝি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার সুযোগ পেয়ে সন্ত্রাসী হামলাকারীরা সাক্ষীদের বেশ কয়েকটি গরু চুরি করে নিয়ে যায় এবং মামলা তুলে নেওয়ার জন্য জানে বাঁদিকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এই হামলাকারীদের অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ তারা সন্ত্রাসী কায়দায় মানুষের জায়গা দখল দোকানপাট লুটপাট ,সাধারন মানুষের উপর হামলা গরু ছাগল চুরি ও স্পিডবোট নিয়ে নদীতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে। বিরুদ্ধে এলাকায় রয়েছে হাজারো অভিযোগ।এদেরকে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি জানাচ্ছেন সচেতন মহল।
এই ঘটনায় মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম মায়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাজরাজেশ্বরের ব্যবসায়ী কদম আলী মাঝির ছেলে দুলাল মাঝিকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। সেই মামলার তদন্ত করার জন্য ঘটনাস্থলে গেলে আসামিদের পক্ষ নিয়ে বেশ কয়েকজন সাক্ষীদের সাথে দুর্ব্যবহার করার চেষ্টা করে।
এই ঘটনায় মামলার আসামিদের খুব দ্রুত গ্রেফতার করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।