আজ  শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুর জনতা ব্যাংক এরিয়া অফিস দখল করে জোরপূর্বক সিবিএ চেম্বার করা নিয়ে হট্টগোল

চাঁদপুর জনতা ব্যাংকের এরিয়া অফিস দখল করে সিবিএ সভাপতি শরীফ উল্লাহ জোরপূর্বক চেম্বার করা নিয়ে দুই পক্ষের মাঝে হট্টগোল সৃষ্টি হয়।
জনতা ব্যাংকের একজন কেরানি সিবিএ চাঁদপুর জেলার সভাপতি হয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ব্যাংক কর্মকর্তাদের সাথে অশোভন আচরণ ও বদলি করার হুমকি দেখিয়ে নিজস্ব চেম্বার করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
রবিবার দুপুরে চাঁদপুর শহরের হকার্স মার্কেটের বিপরীত পাশে তমা প্লাজার চতুর্থ তলায় জনতা ব্যাংকের এরিয়া অফিস চলাকালীন সময় সিবিএ সভাপতি নিজস্ব চেম্বার তৈরি করার সময় স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদ চাঁদপুর জেলা শাখার নেতৃবৃন্দরা এসে বাধা প্রদান করেন।
এ নিয়ে সিবিএ চাঁদপুর জেলার সভাপতি শরীফ উল্লাহ সাথে ব্যাংকার্স চাঁদপুর জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ ও জনতা ব্যাংক এর অফিসের কর্মকর্তাদের বাক-বিতণ্ডা সৃষ্টি হয়।
এ সময় সিবিএ চাঁদপুর জেলার সভাপতি শরিফ ব্যাংকের অনন্য কর্মকর্তাদের প্রকাশ্যে হুমকি-ধমকি ও ব্যাংক থেকে অন্যত্র বদলি করে দিবে বলে হুংকার দেয়।
সাংবাদিক আসার পরেই সিবিএ নেতা শরীফ উল্লাহ তার খালাতো ভাইকে খবর দিয়ে এনে ব্যাংকের মধ্যে কর্মকর্তাদের সাথে দুর্ব্যবহার ও হট্টগোল সৃষ্টি করে।

জনতা ব্যাংকের এরিয়া অফিসে সিবিএ চেম্বার করার সময় সিবিএ চাঁদপুর জেলার সভাপতি শরীফউল্লা জানায়, উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ও ডিজিএম শাহ আলম মজুমদার অনুমতি দেওয়ায় জনতা ব্যাংক এরিয়া অফিসের ভিতরে সিবিএ চেম্বার করার কাজ করছি।
লিখিত কোনো অনুমতি না থাকলেও মৌখিকভাবে তাদের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে কাজ শুরু করেছি।

জনতা ব্যাংক চাঁদপুর এরিয়া অফিসের ডিজিএম শাহ আলম মজুমদার জানায়, শারীরিক অসুস্থতার কারণে চিকিৎসার জন্য ছুটি নিয়েছি।
সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সিবিএর সভাপতি শরীফ উল্লাহ অফিস বন্ধের সময় মালামাল ব্যাংকে নিয়ে আসে।
সিবিএ সভাপতি তার নিজস্ব চেম্বার করার জন্য কাজ করার চেষ্টা করলেও তাকে কোন ধরনের অনুমতি দেওয়া হয়নি। কিন্তু সে অনুমতি না নিয়ে জোরপূর্বক ব্যাংকের মধ্যে জায়গা দখল করে চেম্বার করার পাঁয়তারা করছে। এ বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সহ সবাইকে অবগত করা হয়েছে।

স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদ চাঁদপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও জনতা ব্যাংক ষোলঘর শাখার ম্যানেজার কে এম ফখরুল ইসলাম সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা জানায়, জনতা ব্যাংকের এরিয়া অফিসে কোন অবস্থাতেই সিবিএ চেম্বার করার নিয়ম নেই। অনুমতি না নিয়েই সিবিএ সভাপতি শরীফ উল্লাহ ক্ষমতার অপব্যবহার করে হুমকি-ধমকি দিয়ে নিজস্ব চেম্বার করার চেষ্টা করছে। আমরা বাধা দিলে সে আমাদের সাথে অশোভন আচরণ ও বদলি করে দেবার হুমকি দেয়।সে বহিরাগত লোক খবর দিয়ে এনে ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করেছে।
এ ঘটনায় আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি ও তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি করছি।

শাহরিয়ার খান কৌশিক, মো,০১৭১৩৬৮৮৯২০