আজ  শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৮

চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের গতিশীল নেতৃত্বে সর্বস্তরের নেতা-কর্মী-সমর্থকবৃন্দ উজ্জ্বীবিত

সহ-সভাপতি মনজুর আহমদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

Nasir+Monjur+Dulal

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ঐতিহ্যবাহী মেঘনার এ অঞ্চল ‘চাঁদপুর’ দীর্ঘদিন যাবত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গুড নোট বুকে রয়েছে। জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে সর্বশেষ তা আবারও প্রমাণিত হলো। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, বাংলার রাখাল রাজ মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সফল সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১০ আগষ্ট ২০১৭ তারিখে চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেন। দলীয় প্রধানের রাজনৈতিক দূর-দর্শিতার বিচক্ষণতার ফলে অর্থাৎ নবীন- প্রবীণের সমন্বয়ে দলের ৯৫ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হওয়ায় গোটা জেলায় আওয়ামীলীগের সর্বস্তরের নেতা, কর্মী এবং সমর্থকবৃন্দ দারুন উজ্জীবিত। চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের ৯৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির মধ্যে রয়েছে ২১ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদ এবং ৩৯ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটি ও ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট সম্মানিত সদস্য।
বিগত কমিটির সুদীর্ঘ ১১ বছর পর অর্থাৎ ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি তারিখে চাঁদপুর ষ্টেডিয়ামে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ চাঁদপুর জেলা শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই সম্মেলনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তাঁর পছন্দের প্রার্থী হিসেবে চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পদে নাছির উদ্দিন আহম্মেদ ও সাধারণ সম্পাদক পদে আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল এর নাম ঘোষণা করেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ওই সময় সম্মেলনে উপস্থিত সকল কাউন্সিলর এবং ডেলিগেটরা স্বতঃস্ফূর্ত করতালির মাধ্যমে দলীয় সভাপতির এই প্রস্তাব সানন্দে গ্রহণ করেন। সে সময় সেখানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ক’জন মন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উল্লেখযোগ্য ক’জন নেতার পাশাপাশি চাঁদপুরের বিভিন্ন সাংসদগণসহ জেলার বেশক’জন নেতা উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ চাঁদপুর জেলা শাখার ২১ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদের মধ্যে চাঁদপুর জেলার চার সাংসদ রয়েছেন। তাঁরা হচ্ছেন যথাক্রমে ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি, ডা.দীপু মনি এমপি, মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপি, মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপি। জেলার অপর সাংসদ ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়া এমপি বিগত কমিটির সাবেক সভাপতি হিসেবে বর্তমান কার্যকরী কমিটিতে ১নং কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে রয়েছেন। বর্তমান কমিটির উপদেষ্টা পরিষদের বাকী ১৭ জন সদস্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ক’জন উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য হচ্ছেন যথাক্রমে ডা. বদরুন নাহার চৌধুরী, অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন, গোলাম কবির চৌধুরী, আলহাজ্ব কায়কোবাদ চুন্নু মিয়া সরকার।
মাঠ পর্যায়ে তাঁদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান ও গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে। ডা. বদরুন নাহার চৌধুরী বিশিষ্ট চিকিৎসকের পাশাপাশি একজন মানবদরদী সমাজ সংস্কারক। তিনি চাঁদপুর জেলায় বীর মহিলা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে স্বাধীনতা পদক লাভ করেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের (অব.) অতিরিক্ত মহাপরিচালক ডা. বদরুন নাহার চৌধুরীর ব্যাপক পরিচিত রয়েছে। মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামীলীগের দীর্ঘদিনের সফল সভাপতি অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। আজন্ম আওয়ামীলীগার গোলাম কবির চৌধুরী সিআইপি হিসেবে অধিক পরিচিত। আওয়ামীলীগের অনুদান দাতা হিসেবে তাঁর যথেষ্ট অবদান রয়েছে। হাইমচর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব কায়কোবাদ চুন্নু মিয়া সরকার স্থানীয় আওয়ামীলীগের মাঠ পর্যায়ের একজন ত্যাগী নেতা। এলাকায় তাঁর যথেষ্ট পরিচিতি এবং গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে।
চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরী কমিটির ৩৯ সদস্যের মধ্যে প্রায় অর্ধেক প্রবীণ নেতা এবং বাকী অর্ধেক নবীন নেতা সম্পৃক্ত রয়েছেন। জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র হিসেবে অত্যন্ত সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন এবং জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল এ নিয়ে পর পর দু’বার চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব অত্যন্ত সফলতার সাথে পালন করছেন। সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক দু’জনেরই মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক পরিচিতি এবং গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ইউসুফ গাজীরও মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক পরিচিতি এবং গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। ইতিপূর্বে তিনি চাঁদপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান এবং চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ডা. জে আর ওয়াদুদ টিপু একজন বিশিষ্ট চিকিৎসক এবং সমাজসেবক। তিনি এবং তাঁর বোন ডা. দীপু মনি এমপি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ভাষা সৈনিক মরহুম আব্দুল ওয়াদুদ পাটওয়ারীর সন্তান। উত্তরাধিকারভাবে এবং পরবর্তীতে দলীয়ভাবে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে তাঁদের যথেষ্ট অবদান রয়েছে।
বর্তমানে জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন বাবুরহাট এলাকার আদর্শিক রাজনীতিক শহীদুল্লাহ মাষ্টার। এলাকায় যে-কোন অন্যায়ের প্রতিবাদের পাশাপাশি একজন সৎ ও আদর্শবান রাজনীতিবিদ হিসেবে তাঁর যথেষ্ট পরিচিত রয়েছে। সহ-সভাপতি আলহাজ্ব বিল্লাল আখন্দ উওরাধিকার সূত্রে এবং পারিবারিক ভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। গোটা আখন্দ বংশই আজন্ম আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। তাঁর পিতা মরহুম আলহাজ্ব রফিউদ্দিন আখন্দ ওরফে সোনা আখন্দ জীবদ্দশায় স্থানীয় ব্যবসায়ী সমাজের নেতার পাশাপাশি আওয়ামীলীগেরও নেতা ছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধেরও একজন সফল সংঘঠক ছিলেন। স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে আখন্দ পরিবারের যথেষ্ট প্রভাব প্রতিপত্তি রয়েছে। সহ-সভাপতি আবদুর রশিদ সর্দার স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে একজন নিরেট ভদ্রলোক হিসেবে বিশেষভাবে পরিচিত।
চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সহ-সভাপতি হিসেবে স্থান পাওয়া মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মঞ্জুর আহমদ নানা কারনে বিশেষভাবে আলোচিত। একজন উচ্চ শিক্ষিত, সৎ ও মেধাবী রাজনৈতিক নেতা মনজুর আহমদ পারিবারিক ভাবেই যথেষ্ট প্রভাবশালী। তাঁর পিতা ছিলেন একজন সচিব এবং সেই সুবাদে তিনি বাংলাদেশ সচিবালয় সমিতির সভাপতি হিসেবেও দীর্ঘদিন অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। মতলব উত্তর উপজেলা এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত অন্যায়ের প্রতিবাদী রাজনীতিক ও সমাজসেবক হিসেবে তাঁর যথেষ্ট পরিচিতি ও সুনাম রয়েছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপির পাশাপাশি স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতি শক্ত হাতে ধরে রেখেছেন তিনি। চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এবং মতলব উত্তর উপজেলা চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ গোটা উপজেলা জুড়ে মাদক, বাল্যবিবাহ, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধের বিরুদ্ধে অসামান্য অবদান রেখে চলেছেন। তার এ সততা, নিষ্ঠা, প্রসারিত রাজনীতি ও অন্যায়ের প্রতিবাদী কন্ঠ নিয়ে একদিন অনেক বড় অবস্থানে পৌছবেন বলেও তিনি বিশ্বাস করেন। মনজুর আহমদ বলেন, আমাকে চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত করায় উন্নয়নের প্রতীক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞ। এসময় তিনি চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকসহ সকল নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানান।