আজ  শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

চাঁদপুর শহরে মসজিদ ভেঙ্গে দখলের চেষ্টা, মুসল্লিদের মাঝে ক্ষোভ

  চাঁদপুর শহরের কোড়ালিয়া মমিন পাড়াস্থ বহরদার বাড়ি রোডে জুমার নামাজ আদায় করা  আব্দুস সামাদ নামে জামে মসজিদের একাংশ ভেঙ্গে দখলের চেষ্টা করেন মোতাওয়ালী  ইসহাক মোল্লা ও তার পুত্র সাঈদুল ইসলাম মোল্লা। এ নিয়ে স্থানীয় মুসল্লিদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করতে দেখা যায়। মসজিদ ভাঙ্গার অভিযোগের খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মসজিদ  ভাঙ্গার  বিষয়টি স্থগিত করে আসেন এবং পূনরায় সংস্কার করার নির্দেশ দেন।

স্থানীয়রা জানায়, ২০১৬ সালে মমিন পাড়া বহদার বাড়ি রোডে স্থানীয়রা মিলে আলাপ আলোচনা করে ইসহাক মোল্লা মোতায়ালিন হিসেবে দানকৃত জমিতে আব্দুস ছামাদ নামে সকলের দানের টাকায় এই মসজিদটি নির্মান করেন। মসজিদ প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর থেকে স্থানীয়রা শান্তিপূর্ণ ভাবে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে আদায় করে আসছেন। পরবর্তীতে প্রতি জুমায় মুসল্লি বেশি হওয়ার কারনে মসজিদের একটি বারান্দা নির্মান করা হয়। কয়েক বছর যেতেই মসজিদের দান বাক্সের টাকা নিয়ে মসজিদ কমিটির সাথে ইসহাক মোল্লার বাকবিতন্ডা হয়। কারন দান বাক্সের জমানো টাকা ইসহাক মোল্লা মসজিদের কাজে ব্যায় না করে নিজে খরচ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তাই কমিটির সাথে কয়েক বছর পূর্বে বাকবিতন্ডা হলে তিনি ওই সময়  একদিন মসজিদে তালা লাগিয়ে দেন। তারই সূত্র ধরে ২৮ মার্চ রবিবার সকালে ইসহাক মোল্লা ও তার ছেলে সাঈদুল মসজিদের বাড়ান্দার চালের টিন, জানালা,  বেড়া এবং সিলিং ফ্যান খুলে ফেলে।
ব্যক্তিগত আক্রোসে একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ভাঙ্গার কারনে স্থানীয়রা চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশকে জানালে থানার এস আই সর্ঙ্গীয়ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তা ভাঙ্গা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান করেন।

     কয়েকজন এলাকাবাসী জানায়, পারিবারিক সমস্যার সাথে মসজিদকে না ঝরানো ভাল। যেহুতু তারা ৩ ভাই মসজিদ করবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ও করেছেন। তাই নিজেরা বসে তা সমাধান করা ভাল। আর মুসল্লীদের স্বার্থে মসজিদ নিয়ে দ্বন্দ না করাই ভাল বলে মনে করছি। আমরা এ মসজিদ ভাঙ্গার পক্ষে নই।

মসজিদের খতিব হাফেজ মাওঃ দ্বীন ইসলাম জানায়, ২০১৬ সালে মসজিদটি প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর থেকে আমি নামাজ পড়াচ্ছি। পারিবারিক দ্বন্দের কারনে ইসহাক মোল্লা শনিবার সকালে মসজিদের বাহিরের ছাপড়াটি ভেঙ্গে ফেলেন। প্রায় ৮ মাস পূর্ব থেকে মসজিদের বাহিরে নামাজ পড়া বন্ধ রয়েছে।
মসজিদ ভাঙ্গার প্রতিবাদে স্থানীয় মুসল্লিদের দাবি যারা একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে নিজেদের ব্যক্তিগত আক্রোসে তা ভেঙ্গে ফেলেছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন মুসল্লিরা।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইসহাক মোল্লা বলেন, আমরা তিন ভাই মিলে তিন শতাংস জমি দিয়ে সবার আলোচনা সাপেক্ষে মসজিদটি আমার জায়গায় নির্মান করা হয়। পরবর্তীতে জুমার নামাজে মুসল্লি বেড়ে যাওয়ায় মসজিদের বারান্দাটিও আমার জায়গায় নির্মান করি। তারা বলেছিলেন পরবর্তীতে আমার দু, শতাংস জমি বুঝিয়ে দিবেন। কিন্তু আজো তা নিয়ে বসি বসি করে বসা হয়নি। সেজন্য আমি আমার জমি থেকে মসজিদের বারান্দাটি সরানোর জন্য বারান্দার চাল,  বেড়া, এবং সিলিং,  ভেঙ্গে ফেলি।
চাঁদপুর মডেল থানার এস আই মোঃ বেলাল হোসাইন জানায়, আমি খবর পেয়ে মসজিদটি না ভাঙ্গার জন্য বলে এসেছি। এটি যেহেতু ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সেজন্য তাদের কে বলেছি ৮নং এবং ৯ নংয়ের দুই কাউন্সিলদের সাথে আলোচনা করে তা মিমাংসা করার জন্য। তারা আগামী শুক্রবারে তারা উভয় পক্ষ বসবেন বলে জানিয়েছে।