আজ  শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৭

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১০ হাজার পরিবারের মাঝে তুরস্কের ৩০০ মে. টন ত্রাণ সামগ্রী বরাদ্দ মতলব উত্তরে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

news pic

জাকির হোসেন বাদশা, মতলব (চাঁদপুর) ॥
সারাদেশে বিভিন্ন জেলায় বিগত বর্ষার ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ ১০ হাজার পরিবারের জন্য তুরস্কের আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থার (টিকা) মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারকে ৩০০ মে. টন ত্রাণ সামগ্রী সহায়তা করেছে। এরমধ্যে লালমনিরহাটে ৯০ টন; বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, গাইবান্দা ও মানিকগঞ্জে ৩০ টন করে এবং চাঁদপুরে ৬০ টন ত্রাণ সামগ্রী বরাদ্দ দেয়া হয়। ৩০ কেজির প্রতি প্যাকেটে রয়েছে ২০ কেজি চাল, ৫ কেজি ডাল, ২ লিটার তেল, ২ কেজি চিনি এবং ১ কেজি লবন। পরিবার প্রতি ৩০ কেজি করে ১০ হাজার প্যাকেটের মাধ্যমে এ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে।
বৃহস্পতিবার সকালে চাঁদপুরে বরাদ্দকৃত ৬০ মে. টন ত্রাণ সামগ্রী মতলব উত্তরের আলী মিয়া মহাবিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে বিতরণ করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপি। এসময় তুরস্কের আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থার (টিকা) সমন্বয়কারী আহমেদ রেফিক চিটিংকায়া, উপ-সমন্বয়কারী শেরিফ উজতুর্ক উপস্থিত ছিলেন। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, আলোকিত বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন এর নির্বাহী পরিচালক ইফতেখার হোসেন, চাঁদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী ওচমান পাটোয়ারী, চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র নাসির উদ্দিন ভূইঁয়া, জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর মন্ডল, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, মতলব উত্তর ইউএনও শারমিন আক্তার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. রুহুল আমিন, সাধারন সম্পাদক এমএ কুদ্দুস, ওসি আনোয়ারুল হক প্রমুখ।
ত্রাণ বিতরণকালে মন্ত্রী মায়া চৌধুরী বলেন, এ বছর দীর্ঘ মেয়াদী ও বিস্তৃত এলাকায় বন্যা হয়েছে। কিন্তু একটি মানুষও বন্যার কারনে খাদ্য অভাবে ও আশ্রয়হীন ছিল না। সরকার ও আওয়ামীলীগ দলীয় নেতৃবৃন্দের সক্রিয় অংশগ্রহণে সরকার সফলতার সাথে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছে। মন্ত্রী বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য এখনো ত্রাণ তৎপরতা ও পুনর্বাসন কাজ অব্যাহত রয়েছে। বন্যার টেকসই মোকাবিলার জন্য সরকার বন্যাপ্রবণ এলাকায় নতুন নতুন আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করছে ও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষদের ঘরবাড়ি উঁচু করে দিচ্ছে। বন্যার পানি দ্রুত নেমে যেতে সরকার গুরুত্বপূর্ণ নদীগুলো ড্রেজিং করার উদ্যোগ নিয়েছে। মায়া আরও বলেন, তুরস্কের সাথে বাংলাদেশ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় তুরস্ক সরকার বাংলাদেশের বন্যা কবলিত পরিবারদের জন্য এ সহায়তা পাঠিয়েছেন। রোহিঙ্গাদের সার্বিক সহায়তায় এগিয়ে আসার জন্যও তিনি তুরস্ক সরকারকে ধন্যবাদ জানান।