আজ  মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮

মতলব উত্তরে অসহায় পরিবারের জায়গা দখলের অভিযোগ

আদালত কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা জারী
M1
মতলব (চাঁদপুর) প্রতিনিধি :
চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার বদরপুর হযরত শাহ্ সোলায়মান লেংটা (রহ.) এর মাজার এলাকায় এক অসহায় পরিবারের জায়গা স্থানীয় প্রভাবশালী মহল কর্তৃক দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দীর্ঘ ৪০ বছর যাবৎ ওই জায়গা জোড়পূর্বক দখল করে রেখেছে ঐ প্রভাবশালী ব্যক্তিরা। এতে অসহায় হয়ে পড়েছে আবুল হোসেন সরকার পরিবারটি। এ ঘটনায় জায়গার মালিক আবুল হোসেন গত ০৮/১১/১৭ ইং তারিখে বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট চাঁদপুর আদালতে আক্তার হোসেন সরকার’সহ ১০ জনকে বিবাদী করে মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত ওই জায়গায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
জানা যায়, উপজেলার বদরপুর মৌজার ১৪৭নং খতিয়ানভূক্ত সাবেক ৬৮৯ বিএস ১৮৫৪ দাগে ২৬ শতাংশ ও একই মৌজার সাবেক ৬৭৫ বিএস ১৯৮৮ দাগে ৪৬ শতাংশ এই দুই দাগে মোট ৭২ শতাংশ জমির ওয়ারিশ সূত্রে মালিক হয় আবুল হোসেন সররকার গং। কিন্তু স্থানীয় প্রভাবশালী আকতার হোসেন তাদের ওই সম্পত্তি বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে দখল করে ভোগ-দখল করে আসছেন। এতে কূল হারা হয়ে পড়েছে পরিবারটি।
মামলার বাদী আবুল হোসেন সরকার বলেন, আমার দাদারা তিন ভাই ছিলেন। ইউসুফ আলী সরকার, আশ্রাফ আলী ও মোকশেদ আলী সরকার। আমি মোকশেদ আলী সরকারের ওয়ারিশ। আকতার সরকার গংরা ইউসুফ সরকারের ওয়ারিশ। হিস্যা অনুযায়ী বাড়ি ও পুকুর ছাড়া ২ দাগে আমি ৭২ শতাংশ জমির মালিক হই। আমার দক্ষিণে আশ্রাফ দাদার অংশ। তার দক্ষিণে ইউসুফ আলী সরকারের অংশ। ইউসুফ আলীর নাতী আকতার হোসেন। মোকশেদ আলীর নাতি আমি। খতিয়ান দাগ ও নকশা অনুযায়ী আমার ৭২ শতাংশ জায়গা সম্পূর্ণ আলাদ। কিন্তু তারপরও আমার জায়গা আকতার হোসেন দীর্ঘ বছর যাবৎ জোড়পূর্বক দখল করে লেংটার মেলা চলাকালীন ভাড়া দিয়ে টাকা উত্তোলন করে। তাকে বাঁধা দিতে গেলে আমাদের প্রাণে মেরে ফেলবে বলে হুমকি ধামকি দেয়। এ নিয়ে একাধিকবার আমার উপর হামলা করেছে। গত কয়েকদিন আগেও আমাকে মারধর করেছে আকতার হোসেন’সহ আরো কয়েজন। কোন উপায়ান্ত না পেয়ে ইদ্রিছ আলীর ছেলে জাকির হোসেন সরকার, তার ভাই আকতার হোসেন সরকার, হাছান সরকার, সহিদুল ইসলাম সরকার, ইউসুফ আলী সরকারের ছেলে ইদ্রিছ আলী সরকার, আকতার হোসেনের ছেলে রাফা, সাফা, জাকির হোসেনের ছেলে নিবির, আবির, হাছান সরকারের ছেলে আসিফ’সহ মোট ১০ জনকে বিবাদী করে প্রতিকার চেয়ে আদালতে মামলা দায়ের করি। তিনি আরো বলেন, স্থানীয় শালিশী বৈঠকে একাধিকবার সমাধা করার চেষ্টা করেও পারিনি।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মামলার প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত গত ২১ মার্চ উভয় পক্ষের জন্য পরবর্তী নিদের্শনা না আসা পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। পাশাপাশি উপজেলা সহকারি কমিশনারকে (ভূমি) সার্ভেয়ার দ্বারা উক্ত জায়গা তদন্ত ও পরিমাপক্রমে আগামী ২৫ মে’র মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। সরেজমিনে আরো দেখা গেছে, নিষেধাজ্ঞাকৃত জায়গায় মেলা উপলক্ষ্যে কোন দোকানপাট বসেনি। অথচ লেংটার মেলার প্রাণ কেন্দ্র ওই জায়গাটি। বাদীর দাবী, প্রতি বছর ওই জায়গায় লক্ষ লক্ষ টাকা ভাড়া উঠে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আকতার হোসেনের সাথে কথা বলার জন্য একাধিক বার চেষ্টা করে সম্ভব হয়নি। তার মুঠোফোনের কল ও রিসিভ করেননি।