আজ  রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯

মতলব উত্তরে ঈদ কেন্দ্রিক আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে গ্রাম পুলিশ মোতায়েন

Matlab uttar pic

আরাফাতআল-আমিন ◊

চাঁদপুরের মতলব উত্তরে আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর কেন্দ্র করে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে অতিরিক্ত গ্রাম পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। উপজেলার প্রতিটি লঞ্চঘাটে, ছেঙ্গারচর বাজার, সাহেব বাজার, সুজাতপুর বাজার, গালিমখাঁ বেরীবাঁধ’সহ ২৫ টি গুরুতপূর্ণ স্থানে ৪ জন করে মোট ১০০ জন গ্রাম পুলিশ সদস্য পাহাড়ায় কাজ করবে।

সোমবার (২০ মে) গ্রাম পুলিশদের নিয়মিত প্যারেড শেষে তাদের এই নির্দেশনা দেন ওসি। এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে ইউপি চেয়ারম্যানদের চিঠি দিয়েছেন তিনি।

২০ মে থেকে ঈদের আগের পর্যন্ত মাঠে থাকবে গ্রাম পুলিশ সদস্যরা। যেকোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে গ্রাম পুলিশ যেকোন সময় সহায়তা করবে। এছাড়া ঈদ যাত্রীরা কোন ভোগান্তিতে পড়লেও সাথে সাথে সহায়তা করবে এই বিশেষ ফোর্স। যানজট এড়াতে ও মলম পার্টির কবল থেকে বাঁচতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে গ্রাম পুলিশ। যেকোন সমস্যা তারা তাৎক্ষণিক সমাধান করবে। বড় সমস্যা হলে থানা পুলিশকে অবহিত করবে। সেটা ওসির নিজ ব্যবস্থাপনায় সমাধান করা হবে। মতলব উত্তর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান জনমানুষের ভোগান্তি রোদে এই বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছেন।

এই উদ্যোগ নিয়ে তিনি ইতোমধ্যেই মানুষের মাঝে আলোচনা চলে আসছেন। এর আগেও তিনি দু’টি ভয়াবহ ডাকাতি মামলার সতত্যা উদঘাটন করে অনেক সুনাম অর্জন করেছেন এবং জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে বিশেষ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। কিছু দিন আগে মতলব উত্তর উপজেলার বিভিন্ন ষ্ট্যান্ডে চাঁদাবাজি বন্ধ করে মতলব উত্তরবাসীর কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন।

এ উপজেলার জনগন ইত্যোমধ্যেই তাকে একজন মডেল ওসি হিসেবে অভিভূত করেছে। ওসি মিজানুর রহমান এ অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করে জনগণের শান্তির কথা চিন্তা করায় মানুষ তাকে মনে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

এ নিয়ে কথা হয় ওসি মো. মিজানুর রহমানের সাথে। তিনি জানান, পুলিশ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। শুধু এখানেই পুলিশ থেমে নেই। জনগনের জানমাল নিরাপদে রাখা, মাদক নিয়ন্ত্রণ ও যেকোন সামাজিক অপরাধ দমনেও মতলব উত্তর থানা পুলিশ জিরো টলারেন্স ফাইট চালিয়ে যাচ্ছে। কিভাবে আমার থানা এলাকার মানুষ শান্তিতে থাকতে পারে। আমি সবসময়ই মানুষের শান্তির কথা চিন্তা করি।

গ্রাম পুলিশ মোতায়েনের মাধ্যমে ঈদ কেন্দ্রিক মানুষ স্বস্তিতে চলাফেরা করতে পারবে এবং ভোগান্তি রোধ হবে উল্লেখ করে ওসি মিজানুর রহমান বলেন, এবারের ঈদ নিয়ে আমি একটি বিকল্প উদ্যোগ নেওয়ার চিন্তা করলাম। ভেবে দেখলাম এ উপজেলায় যেসব গ্রাম পুলিশ সদস্য রয়েছে তাদের ঈদ কেন্দ্রিক কাজে লাগালে মানুষ অতিরিক্ত শান্তি পেতে পারে। সেদিক বিবেচনা করে আজ (সোমবার) তাদের ডেকে লঞ্চঘাট, গাড়ী ষ্ট্যান্ড, বাজারসহ ২৫ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ১০০ গ্রাম পুলিশ সদস্য মোতায়েন করে দিয়েছি। ঈদ যাত্রী, জনসাধারন ও পথচারীদের বিশেষ সহায়তা দেবে এই বাহিনী।