আজ  মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮

মতলব উত্তরে প্রস্তাবিত আইসিটি পার্কের স্থান পরিদর্শন চাঁদপুর জেলা একটি ডিজিটাল জেলা হিসাবে গড়ে তোলা হবে ………..তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক

Parvez_1জাকির হোসেন বাদশা ::

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেছেন, চাঁদপুর জেলা একটি ডিজিটাল জেলা হিসাবে গড়ে তোলা হবে। আমার শ্রদ্ধেয় বড় ভাই দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপি চাঁদপুর ও মতলবকে ডিজিটাল হিসেবে কাজ করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। প্রতিটি মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য নিজেকে তিনি সবসময় ব্যস্ত রাখেন। যিনি জাতীয় নেতা হয়েও প্রতি সপ্তাহে এলাকায় আসেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া সকল উন্নয়ন কাজগুলো তিনি খুব ভালভাবে বাস্তবায়ন করছেন। শনিবার বিকালে চাঁদপুরের মতলব উত্তরের উদ্দমদী এলাকায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি পার্ক (আইসিটি) নিমার্ণের প্রস্তাবিত স্থান পরিদর্শন শেষে উপজেলা পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মস্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে সারাদেশের প্রায় ১১ হাজার তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হয়েছে। এ ডিজিটাল সেন্টারগুলোর মাধ্যমে জনগন প্রায় ২০০ রকম আইটি সেবা পাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বাংলাদেশের ৫১০০ ইউনিয়নে এ জিজিটাল সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে ১১ হাজার তরুণ তরুনীর কর্মসংস্থান হয়েছে। ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে ডিজিটাল সেবা পেছে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, ১৩ কোটি মোবাইল ফোন মানুষের হাতে হাতে। আজ ৫ টি মোবাইল কোম্পানী সেবা দিচ্ছে। ১ হাজার টাকার বিনিময়ে মানুষের হাতে হাতে মোবাইল পৌছে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ৮ বছর আগে এক এমবিপিএস ইন্টারের দাম ছিল ৭৮ হাজার টাকা। মাত্র ৮ বছরের ব্যবধানে তা হয়েছে মাত্র ৪০০ টাকা। দেশে এখন সাড়ে ৬ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সৃষ্টি হয়েছে।

মন্ত্রী আরো বলেন, মেধা নির্ভর যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ৬৪টি জেলায় আইটি পার্ক করা হচ্ছে। আগামী ২০২০ সালে ২০ লক্ষ যুবকের কর্মসংস্থান হবে। শেখ হাসিনা যখন দায়িত্ব নিয়েছিলেন মাত্র ৪২ শতাংশ যুবকের কর্মসংস্থান ছিল। এখন হয়েছে ৭০ ভাগ। ৮ বছরে যে উন্নয়ন হয়েছে, বিগত ২০ বছরে তা হয়নি। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতদের উপহার দেওয়া সন্ত্রাস ও রাজাকারের জনপদকে উন্নয়নের রোল মডেলে রুপান্তির করেছেন শেখ হাসিনা। এ সরকার মৌলবাদ নির্মুল করার লক্ষ্যে আগামীদিনে নৌকায় ভোট দাবী। সবশেষে তিনি বলেন, ‘আমরা হবো জয়ী আমরা হাতিয়ার, ডিজিটাল হবে বাংলাদেশ আইসিটির উপহার’।

সভায় সভাপতিত্ব করেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর মন্ডল। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুসের সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ বলেন, এই এলাকায় আইসিটি পার্ক হলে হাজার হাজার বেকার যুবকের কর্মসংস্থান হবে। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) এমপি ও আজকের অতিথি তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক এর প্রতি আন্তরিক অভিনন্দন জানান।

আরো বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এড. রুহুল আমিন প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন, এডিসি আব্দুল হাই, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম, সহকারি কমিশনার (ভূমি) বিএম রুহুল আমিন রিমন, ছেঙ্গারচর পৌর মেয়র রফিকুল আলম জজ, জেলা পরিষদের সদস্য (পরিচালক) মিনহাজ উদ্দিন খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শহীদ উল্লা মাস্টার, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক কবির হোসেন মাস্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান প্রধান, ইউপি চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরী, নূর মোহাম্মদ, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি দেওয়ান জহির, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সরকার মুকুল, আওয়ামীলীগ নেতা খাজা আহমেদ’সহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রমূখ।