আজ  বুধবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৮

মিরপুরে পুলিশ-পোশাক শ্রমিক সংঘর্ষ, অবরোধ ১০ জন আহত, যানবাহন ও কারখানা ভাঙচুর

1502123333
আইএনএন২৪বিডি.কম  রাজধানীর মিরপুরে মেরিডিয়ান ফ্যাশন নামে একটি তৈরি পোশাক কারখানায় শ্রমিক ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে দিনভর সড়ক অবরোধ করেছে প্রায় সাতশ শ্রমিক। অবরোধ চলাকালে পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে শাহআলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মেহেদি হাসান, এসআই আমান, দুই পথচারী এবং ছয় জন শ্রমিক আহত হয়েছেন। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিত্সার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশের মিরপুর জোনের সহকারী কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম ওই পোশাক কারখানার কয়েকজন শ্রমিকের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, কয়েকদিন আগে মেরিডিয়ানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুল ইসলাম বিনা নোটিসে ২১ জন শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করেন। এ ব্যাপারে রবিবার বিকালে কারখানার শ্রমিকদের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে কর্তৃপক্ষের বৈঠক হয়। বৈঠকে কর্তৃপক্ষ জানান, শ্রমিকদের চাকরি ফেরত দেওয়া হবে না। এতে ক্ষোভে ফেটে পড়ে শ্রমিকদের প্রতিনিধি দল। তারা সাতশ শ্রমিককে পাওনা দিয়ে ছাঁটাই করার দাবি তোলে।

 

এর প্রেক্ষিতে মালিকপক্ষ গতকাল সোমবার সকালে কারখানার প্রবেশ গেইট বন্ধ করে ‘আগামী ৯ আগস্ট পর্যন্ত কারখানা বন্ধ থাকবে’- এমন একটি নোটিস টানিয়ে দেয়। কারখানায় যোগ দিতে এসে শ্রমিকরা গেইটে এ নোটিস দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়েন। সকালে প্রায় ৫/৬শ শ্রমিক মিরপুর-১ নম্বর গোলচক্করে সড়ক অবরোধ করেন।

 

পুলিশ কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম আরো জানান, শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানায় পুলিশ। বেলা ১১টার দিকে শ্রমিকরা মিরপুর-১ নম্বর গোলচক্কর থেকে সরে গিয়ে মিরপুর-২ নম্বর গোলচক্করের সনি সিনেমা হলের সামনে অবস্থান নেন।

 

পোশাক শ্রমিকদের সড়ক অবরোধের খবর ছড়িয়ে পড়লে মিরপুর এক নন্বর, চিড়িয়াখানা রোড, দারুস সালাম সড়কসহ আশপাশে আরো ১০-১২টি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভে যোগ দেন। তারা মিরপুর এক নম্বর বাসস্ট্যান্ড, সনি সিনেমা হল মোড়, চিড়িয়াখানা রোডের রাইনখোলায় সড়ক অবরোধ করে রাখেন। এতে ওই সকল সড়কে শত শত যানবাহন দিনভর আটকা পড়ে থাকে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে যাত্রীদের। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের ইট-পাটকেল নিক্ষেপে এক পর্যায়ে পিছু হটে পুলিশ।

 

এসময় শ্রমিকরা ১৫-২০টি যানবাহন ভাঙচুর করে। পরে শ্রমিকদের একটি অংশ চিড়িয়াখানা রোডে মল্লিক টাওয়ারের জিন্স অ্যাপারেলস গার্মেন্টস লিমিটেড, স্টাইল ওর্য়াল্ড ফ্যাশন নামে দুইটি পোশাক কারখানাসহ বেশ কয়েকটি দোকানে ভাঙচুর চালান। পুলিশ বাধা দিতে গেলে শ্রমিকরা আরো উত্তেজিত হয়ে ওঠে। এসময় শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে।

 

শাহ আলী থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, পুলিশ অবরোধ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানালে শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করলে ?পুলিশ পাল্টা টিয়ারশেল নিক্ষেপ, লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। দুপুর ২টার দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় বলে ওসি দাবি করেন।

 

মেরিডিয়ান ফ্যাশন কারখানার সিনিয়র অপারেটর সুমনা বলেন, আমরা শ্রমিক, কাজ করে খাই। হঠাত্ কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সামনে ঈদ, আমাদের বেতন দেওয়া হয়নি। আমাদের পাওনা দিয়ে কারখানা বন্ধ করুক, আমাদের সমস্যা নেই। তবে পাওনা না দিয়ে কারখানা বন্ধ করতে দেওয়া হবে না।

 

আরেক শ্রমিক মোমেনা জানান, গত মাসের বেতন দেওয়ার কথা ছিল মঙ্গলবার; কিন্তু গার্মেন্টসে তালা দিয়ে উধাও হয়ে গেছেন মালিক। ঈদকে সামনে রেখে ষড়যন্ত্র করে বিনা নোটিসে আগেই গার্মেন্টস বন্ধ করা হয়েছে।

 

তবে এব্যাপারে গার্মেন্টসটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সাইফুল ইসলাম, পরিচালক নাসির হোসেন এবং চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেনসহ কাউকেই যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।