আজ  সোমবার, ২০ মে, ২০১৯

মেয়রকে অনাস্থা ১২ কাউন্সিলরের ছেংগারচর পৌর মেয়র রফিকুল আলম জজ’র অভিযোগের শুনানী কার্য অনুষ্ঠিত

Matlab Picture 03

জাকির হোসেন বাদশা : মতলব উত্তর উপজেলার ছেংগারচর পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলম জজ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করে। ওই অভিযোগের সত্যতা যাচাই করার জন্য তদন্তে আসেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শারমিন আক্তার। রোববার বিকেলে পৌর সভা কক্ষে পৌরসভার সচিব, কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারী, এলাকার সুধীজন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
মেয়র রফিকুল আলম জজ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে ছেংগারচর পৌরসভার বাসিন্দা আল মাহমুদ টিটু মোল্লা, সাবেক কাউন্সিলর জামান সরকার ও যুবলীগ নেতা ওমর খানের বিরুদ্ধে ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ইং তারিখে একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগে উল্লেখ করেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ইং তারিখে অনুষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে কতিপয় ব্যক্তিবর্গ পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে দুর্ব্যবহার, হুমকি’সহ স্বাভাবিক কাজে বাঁধা প্রদান করে আসছে। পৌরসভার উন্নয়ন কাজসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ভাতা পরিশোধ করতে দেয়া হচ্ছে না এ মর্মে একটি অভিযোগ দাখিল করেন।
এরই আলোকে ইউএনও শারমিন আক্তার পৌরসভা কার্যালয়ে তদন্তে আসেন এবং শুনানী কার্য অনুষ্ঠিত হয়।
শুনানীতে পৌরসভার সচিব, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও কাউন্সিলরগণ উপস্থিত থেকে এ অভিযোগটি মিথ্যা, বানোয়াট ও তথ্য বিভ্রাট উল্লেখ করে তদন্ত কর্মকর্তাকে জানান, মেয়র জজ ক্ষমতার অপব্যবহার নিরীহ নাগরিক ও দলীয় নেতাকর্মীদের বিভিন্ন সময় অত্যাচার নিপীড়ন’সহ বিভিন্ন মামলায় জড়ানোর কারণে পৌরবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে প্রতিরোধ করার ঘোষনা দেন। পৌরবাসীর রোষানল থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য জাতীয় নির্বাচনের আগমুহূর্তে¡ রাতের আধাঁরে মেয়র রফিকুল আলম জজ ছেংগারচর পৌর এলাকার জজনগর নিজ বাড়ী থেকে কাউকে কিছু না বলে পালিয়ে যান। এরপর থেকে তিনি পৌরসভা কার্যালয়ে আসছেন না। এতে করে পৌরসভার দৈনন্দিন কার্যক্রম ব্যাহত’সহ আমাদের বেতন-ভাতা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনভাতা ও ঠিকাদারদের বিল দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এদিকে পৌরবাসী নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তিনি রাতের আঁধারে পালিয়ে গিয়ে এলাকা সুধীজনদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে। একাধিক কাউন্সিলর বলেন, শাক দিয়ে মাছ ঢাকার অপচেষ্টা করছে পৌর মেয়র রফিকুল আলম জজ।
ইউএনও শারমিন আক্তার পৌরসভায় আসছেন এ খবরে মেয়র রফিকুল আলম জজ ক্ষমতার অপব্যবহার করে আর্থিক, শারীরিক, মামলা-হামলার শিকার হয়ে ক্ষতিগ্রস্থ ছেংগারচর বাজারের ব্যবসায়ী ও পৌরসভার বিভিন্ন গ্রাম থেকে শত শত নারী-পুরুষ লিখিত অভিযোগ নিয়ে উপস্থিত হন এবং শতাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করেন। অভিযোগগুলো ইউএনও আমলে নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার আশ^াস দেন।
অপরদিকে পৌরসভার ১২জন কাউন্সিলর মেয়র রফিকুল আলম জজ এর দীর্ঘ অনুপস্থিতি, পৌরসভার বিভিন্ন প্রকল্পের কাজের স্থবিরতা, অনিয়ম, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কারণে জনদুর্ভোগের ফলে মেয়র এর বিরুদ্ধে অনাস্থা জ্ঞাপন করে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর আবেদন করে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার বলেন, অভিযোগের বিষয়ে শুনানী হয়েছে। অভিযোগের বিষয় নিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী, কাউন্সিলর ও অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বক্তব্য শুনেছি। তদন্ত কাজ চলমান রয়েছে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ইউএনও বলেন, মেয়র রফিকুল আলম জজ এর বিরুদ্ধে পৌরসভার বাজারের ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন গ্রামের নারী-পুরুষরাও লিখিত অভিযোগ করেছে। বিষয়টি আমলে নিয়েছি, এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।