আজ  বুধবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮

রাণীনগর থেকে নিখোঁজ হওয়ার ৮দিন পর রসহ্যজনক ভাবে বাড়িতে ফিরলেন এমরান

Raninagar_Amran_Pic
রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি:

নওগাঁর রাণীনগর থেকে নিখোঁজ হওয়া সিনজেনটা কর্মী এমরান হোসেনকে কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ৮ দিন পর পরিবারের পক্ষ থেকে বাড়িতে আনা হয়েছে বলে পারিবারিক সূত্রে জানায়। কক্সবাজার থেকে সোমবার বিকেলে এমরানকে বাড়িতে আনা হলেও থানাপুলিশকে না জানিয়ে রসহ্যজনক কারণে বাড়িতেই তার চিকিৎসা করা হচ্ছে। পরিবারের দাবি গত ৪ মার্চ রাত অনুমান ৯ টার দিকে এমরানের ফোন পেয়ে তার বাবা সহ কয়েকজন মিলে কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়েছে। অসুস্থ্যতার দোওয়াই দিয়ে এমরানের সাথে কাউকে কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে এলাকাবাসি বলছেন, রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ হওয়ার পরে পূনরায় রহস্যজনক ভাবেই বাড়িতে ফিরলেন এমরান।
জানা গেছে, উপজেলার কালীগ্রাম বড়িয়াপাড়া গ্রামের মোকলেছুর রহমানের ছেলে এমরান হোসেন গত প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে সিনজেনটা কোম্পানির ফিল্ড ডেভেøাপার হিসেবে চাকুরি নিয়ে রাণীনগর সদরের পূর্ব বালুভরা গ্রামের গোলাম হোসেন ডিজেল এর বাসায় ভাড়া থাকতো। গত ২৭ ফেব্রæয়ারী বাসার মালিক ডিজেল হোসেন সহ তার বন্ধুরা ফোন করে তাকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে পরিবারের লোকজনকে জানায়। অনেক খোঁজা-খোঁজি করেও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে ওই দিন সন্ধ্যায় রাণীনগর রেলওয়ে ষ্টেশনের দক্ষিন দিকে রেললাইনের চকের ব্রিজ নামক স্থানে পাকা রাস্তার পাশ থেকে একটি সাইকেল ও একটি ব্যাগ স্থাণীয় লোকজন দেখতে পেয়ে থানায় জমা দেয়। এরপর হঠাৎ করে গত ৪ মার্চ রাত অনুমান ৯ টার দিকে এমরানের ফোন পেয়ে তার বাবা সহ কয়েকজন মিলে কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।
এমরানের বাবা মকলেছুর রহমান জানান, গত ৪ মার্চ ফজরের নামাজের পর ওই এলাকার একটি মসজিদের পার্শ্বে সজ্ঞাহীন অবস্থায় রাস্তার পার্শ্বে পরে থাকতে দেখে মুসল্লিরা তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। বাড়ীতে আসার পর এমরান চিকিৎসাধীন থাকায় এমরান কিভাবে সেখানে পৌছেছে বা কারা কি উদ্দেশ্যে তাকে নিয়ে গেছে এসব ব্যাপারে কিছুই জানা যায়নি বলে পরিবারের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের জানানো হয়।
রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) জহুরুল ইসলাম জানান, গত ২ মার্চ এমরানের পরিবারের পক্ষ থেকে রাণীনগর থানায় একটি জিডি করা হয়। আমরা সম্ভাব্য সকল স্থানেই তাকে খোঁজাখোঁজির এক পর্যায়ে জানতে পারি এমরানকে গত সোমবার দুপুরে বাড়িতে আনা হয়েছে। তবে আমাদেরকে এবিষয়ে কোন কিছু না জানালেও এমরানকে কি ভাবে পাওয়া গেল সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।