আজ  শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০

এবার চীনে বার্ড ফ্লু ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা

ড়াা

উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত চীন। এতে আক্রান্ত হয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এমন অবস্থায় নতুন শঙ্কার কথা জানিয়েছে চীনা কর্তৃপক্ষ। দেশটিতে ছোঁয়াচে এইচ ফাইভ এন ওয়ান ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। যে ভাইরাসটি বার্ড ফ্লু নামে বেশি পরিচিত। তবে এখনো বার্ড ফ্লু আক্রান্ত কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি।
চীনের কৃষি মন্ত্রণালয় রবিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, হুনান প্রদেশে বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। তবে এখনো কোনো মানুষ এটিতে আক্রান্ত হয়েছে এমন খবর পাওয়া যায়নি। খবর সিনহুয়ার।
বিবৃতিতে বলা হয়েছে, হুনান প্রদেশের শাওয়াং শহরের শুয়াংকিং জেলায় একটি খামারে ব্যাপকহারে বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে ওই খামারে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭ হাজার ৮৫০টি পোল্ট্রি মুরগি এবং সাড়ে চার হাজার পাখির মৃত্যু হয়েছে।
হুনান প্রদেশ উহান প্রদেশের সঙ্গেই অবস্থিত। এই উহান থেকেই বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। ডিসেম্বরের শেষ দিক থেকে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০৪ জনে। শুধুমাত্র চীনে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। এছাড়া বিশ্বের প্রায় ২০টি দেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।
করোনাভাইরাসের মোকাবেলা করতে চীন যখন হিমশিম খাচ্ছে তখনই বার্ড ফ্লু ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কার কথা জানায় দেশটির কৃষি মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে বার্ড ফ্লু ঠেকাতে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে চীন।
বার্ড ফ্লু ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত কয়েক দশকে বিশ্বজুড়ে বহু লোক নিহত হয়েছে। ২০০৯-১০ এবং ২০১৩-১৪ সালে এটি বিশ্বব্যাপী ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ে। সেসময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিভিন্ন দেশ এটি প্রতিরোধে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করে।
বার্ড ফ্লু কী?
বার্ড ফ্লু সাধারনভাবে ফ্লু বা ইনফ্লুয়েঞ্জা জাতীয় একটি রোগ। এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা নামক ভাইরাসের সংক্রমনে এই রোগ হয়। বার্ড ফ্লুকে, বার্ড ইনফ্লুয়েঞ্জা এবং এভিয়ান ফ্লু নামেও ডাকা হয়। ভাইরাস বাহিত এই রোগটি পাখিদের সংক্রমিত করে। পাখিরা খুব দ্রুত একস্থান থেকে অন্য স্থানে চলে যেতে পারে বলে এই রোগ দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। আবার প্রকৃতিতে স্বাধীন ভাবে বিচরন করা পাখির মাধ্যমে এই রোগ সহজেই গৃহপালিত পাখিতে সংক্রমিত হয়।
বার্ড ফ্লু এর লক্ষণ
সাধারণত সংক্রমণের ১-৩ দিন পর সাধারন ফ্লু বা ইনফ্লুয়েঞ্জার মতোই রোগীর ঠাণ্ডার লক্ষণ প্রকাশ পায় যেমন- জ্বর, গা ব্যথা, গা ম্যাজম্যাজ করা, ঠান্ডা লাগা, হাঁচি, কাশি, মাথাব্যথা, মাংসপেশি ব্যথা, বমি, পাতলা পায়খানা ইত্যাদি। বার্ড ফ্লুর লক্ষণ অনেক ক্ষেত্রে খুব সামান্য হতে পারে আবার অনেক ক্ষেত্রে অত্যন্ত তীব্র হতে পারে যেখানে মৃত্যু ঝুঁকি বেড়ে যায়। পরবর্তীতে অবস্থা জটিল হলে অনেক ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের সংক্রমণ বা এনসেফালাইটিস, হৃৎপিণ্ডের সংক্রমণ বা মায়োকার্ডাটাই, মাংসপেশিতে সংক্রমণ বা মায়োসাইটিস ইত্যাদি হতে পারে। বার্ডফ্লু হলো ইনফ্লুয়েঞ্জার তীব্র একটি রূপ।