আজ  বৃহঃবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরে অনুমোদনহীন ভাবে চলছে বিএনপি নেতা কিরণের অবৈধ শিপইয়ার্ড

 

চাঁদপুরে অনুমোদনহীন ভাবে ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে গড়ে উঠেছে অবৈধ শিপইয়ার্ড ও ডকইয়ার্ড। এতে করে পরিবেশ ও নদীর পানি চরমভাবে দূষণ হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে অবৈধ শিপইয়ার্ড ,ডকইয়ার্ড এর বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা না করায় সরকারি জায়গা দখল করে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে।
চাঁদপুর জেলায় মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদী পারে বিআইডব্লিউটির জায়গা দখল করে প্রায় শতাধিক ডকইয়ার্ড নির্মিত হয়েছে।
এছাড়া চাঁদপুর শহরের পূর্ব শ্রীরামদী আল-কায়েত জুট মিলের পাশে ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে অবৈধভাবে অনুমোদনহীন মেট্রো শিপিং কর্পোরেশন নামে একটি বিশাল শিপিয়ার্ড নির্মিত হয়েছে। শরীয়তপুর বিএনপি সভাপতি ও আদম ব্যবসায়ী শফিকুর রহমান কিরণ এই অবৈধ শিপিয়ার্ডের এমডি। তিনি ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে বেশ কয়েক বছর যাবত ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে এই শিপইয়ার্ড নির্মিত করে বেশ কয়েকটি লাইটার জাহাজ ও পল্টন তৈরি করে বিক্রি করেছে।
বিআইডব্লিউটি ও পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন ধরনের ছাড়পত্র না নিয়েই তিনি এই অবৈধ শিপিয়ার্ড নির্মাণ করে ব্যবসা পরিচালনা করছে।
সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ থেকে চোরাই জাহাজ এনে এই শিপইয়ার্ডে কেটে সেই চোরাই প্লেট ও এঙ্গেল দিয়ে নতুন করে জাহাজ নির্মাণ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এই ঘটনা জানতে পেরে ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে খোঁজ খবর নেয়।
আওয়ামী লীগের এমপি, মন্ত্রীদের অবৈধ সম্পদ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করলেও বিএনপি নেতা শফিকুর রহমান কিরণের অবৈধ সম্পদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ না করা জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
অভিযোগ রয়েছে,
শফিকুর রহমান কিরণের মেট্রো শিপিং কর্পোরেশন নামে শিপইয়ার্ডে বর্তমানে অবৈধভাবে দুইটি ১৭৫ ফুট দৈর্ঘ্য লাইটার জাহাজ নির্মিত হচ্ছে। জাহাজ তৈরীর কন্টাকটার হিসেবে নিয়োজিত করেছেন শরীয়তপুরের নুরু ও ফরিদপুরের আক্তার।

চাঁদপুর বিআইডব্লিউটিএ উপ পরিচালক
একেএম কায়ছারুল ইসলাম জানান, চাঁদপুরে অনেক শিপইয়ার্ড ও ডকইয়ার্ড লাইসেন্সবিহীন অনুমোদনহীন ভাবে চলছে।সরকারি জায়গা দখল করে যারা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করছে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সরকারি সম্পদ দখল মুক্ত ও অবৈধ শিপিয়ার্ড, ডকইয়ার্ড উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে।

চাঁদপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক নাদিম হোসেন শেখ জানান, চাঁদপুরে যেসকল শিপইয়ার্ড নির্মিত হয়েছে এদের কোনো অনুমোদন নেই। তবে মেট্রো শিপিং কর্পোরেশন নামে শিপইয়ার্ডের অনুমোদন চেয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরে আবেদন করেছেন। কিন্তু তাদের কাগজপত্র জটিলতার কারণে তাদেরকে অনুমোদন দেওয়া হয়নি। তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

এদিকে নদীর পাড়ে অবৈধভাবে গড়ে উঠা এসকল ডকইয়ার্ড ও শিপইয়ার্ডে বিভিন্ন জায়গা থেকে চুরি হওয়া জাহাজ ,বলগেট, ট্রলার এখানে এনে রাতের আধারে কেটে ফেলছে। এছাড়া পরিবেশ চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হাওয়ায় কারণে কাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে এই অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা শিপিয়ার্ড ও ডকইয়ার্ড উচ্ছেদ করার জোর দাবি জানিয়েছে সচেতন মহল।,