আজ  রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০

চাঁদপুরে চাল আত্মসাতের অভিযোগে বিএনপির সম্পাদকের নেতৃত্বে ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট

 

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৩ নং কল্যাণপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রানী পাটোয়ারী বিরুদ্ধে সরকারি ত্রাণের চাল আত্মসাতের অভিযোগে চেয়ারম্যানের বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করেছে।
বুধবার রাতে ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়ির গোডাউন থেকে ৩৩ বস্তা চাল টমটম গাড়িতে উঠিয়ে বিতরনের জন্য রাস্তার পাশে অন্য গোডাউনে নেওয়ার পথে ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম খান গাজির হাট বাজারের সামনে জব্দ করে।
বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম খান ও মেম্বার মমিনুল ইসলাম বেপারীর নেতৃত্বে ইউনিয়নের শতাধিক লোক বিক্ষোভ করেন এবং সড়ক অবরোধ করে। এসময় বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও মেম্বার মমিনুল ইসলাম বেপারীর সহ বিক্ষুব্ধ জনতা চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রনির বাড়িতে ঢুকে ব্যাপক ভাঙচুর করে এবং তার মূল্যবান গাড়িটি ভেঙে চুরমার করে। এ সময় চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ব্যর্থ হলেও খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল জাহেদ পারভেজ চৌধুরী ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় । চাল আত্মসাতের ঘটনায় অভিযুক্ত রনির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য এলাকার হাজারো জনতা বিক্ষোভ করেন এবং এর সুষ্ঠু বিচার দাবি জানান। চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা ঘটনাস্থলে এসে বিক্ষুব্ধ জনতার উদ্দেশ্যে বলেন অভিযোগ প্রমাণ হলে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে আশ্বস্ত করেন।
পরে স্থানীয়রা শান্ত হলে চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ জব্দকৃত ৩১ বস্তা চাল উদ্ধার করে মডেল থানায় নিয়ে যান।
‌‌চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রনি জানান, অসহায় দুস্থ পরিবারের মাঝে চাল,ডাল ও অন্যান্য সামগ্রী নিজ বাড়ির সামনে গোডাউন থেকে বিতরণ করা হয়েছে। নতুন করে ১ টন চাল বরাদ্দ হলে বিতরনের জন্য পর্বের চাল গুলো
বাড়ির গোডাউন থেকে রাস্তার পাশে গোডাউনে রাখার জন্য নেওয়ার পথে
বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও মেম্বার মমিন ঈর্ষান্বিত হয়ে জনপ্রিয়তা নষ্ট করার লক্ষে এলাকাবাসীকে বিভ্রান্তি করে চাল গুলো জব্দ করে। তারা আমার বাসায় ঢুকে গাড়ি ভাঙচুর চালায় ও আসবাবপত্র ভেঙ্গে লুটপাট করে নিয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা আমার স্ত্রীর উপর হামলা চালায় ও আমার বাবাকে টেনে বের করে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে।আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল তাই এর সাথে যারা জড়িত রয়েছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানায়।
এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল জাহেদ পারভেজ চৌধুরী জানান, ইউপি চেয়ারম্যান চাল পাচারকালে স্থানীয়রা ৩১ বস্তা ত্রাণের চাল জব্দ করে। পরে বিক্ষুব্ধ জনতা উত্তেজিত হয়ে পড়লে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এই ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।