আজ  মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০

হাইকোর্টের নির্দেশনা উপেক্ষিত   চাঁদপুরে সাবেক এমপি হারুন খানের লীজকৃত প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ, ৬কোটি টাকা ক্ষয়ক্ষতি

হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ও উচ্চ আদালত পূর্ণাঙ্গ খোলার পূর্বে রেল কর্তৃপক্ষ নারায়ণগঞ্জের ৫নং ঘাট এলাকায় রেলওয়ের  লীজকৃত চাঁদপুরে সাবেক এমপি মরহুম হারুনুর রশিদ খানের ৩ হাজার বর্গফুট জায়গায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ করা হয়েছে।
নারায়নগঞ্জের রেলওয়ের এক কর্মকর্তা ইকবাল এবং ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান পাওয়ার কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন অফ চায়না লিমিটেড p.r chaina যৌথ উদ্যোগে মহামান্য হাইকোর্টে ও উচ্চ আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই লীজকৃত জায়গা উচ্ছেদ করেছে। নিয়ম অনুযায়ী মেজিস্ট্রেট ও পুলিশ এবং অন্যান্য  সংস্থার উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তা না করে খমতার অপব্যবহার করে রেলওয়ের এই অসাধু কর্মকর্তা ইকবাল লীজকৃত প্রতিষ্ঠানটি ভেঙ্গে ফেলে।
রেলওয়ের অসাধু কর্মকর্তা ইকবাল তার চাহিদা মাফিক মাসিক চাঁদার টাকা না পেয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করে এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি ভেঙে ফেলেছে।
এতে করে মহরম হারুনুর রশিদ খানের ছেলে প্রতিষ্ঠানের পরিচালনাকারী মোহাম্মদ আজাদ খানের প্রায় ৬ কোটি টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে অভিযোগ করেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

১৯৬৪ সালে রেলওয়ে থেকে লিজ নিয়ে চাঁদপুরে সাবেক এমপি বিষ্ণুপুরের স্বনামধন্য ব্যক্তি মহরুম হারুনুর রশিদ খান নারায়ণগঞ্জের ৫নং ঘাট এলাকায় ৩ হাজার বর্গফুট জায়গা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্যে রেলওয়ে থেকে লিজ নেয়।
ওই জায়গাতে মহরম হারুনুর রশিদ খান তার জীবন দশায় একখানা সেমিপাকা ভবন নির্মাণ করে ডিজেল পেট্রোলের ব্যবসা করতেন। কিন্তু তার মৃত্যুর পরে তার সন্তান আজাদ খান পরে ওই ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে ব্যবসার ধরন পাল্টিয়ে সারের পাইকারি ব্যবসা করত। একসাথে ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ৫২ হাজার সারের বস্তা রাখার ব্যবস্থা ছিল।

করোনাকালীন সময়ে হাইকোর্টে মহামান্য প্রধান বিচারপতি মোঃ আলী আকবর ১১ এপ্রিল তারিখে জামিন /অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা /স্থিতিবস্থা/ স্থগিতাদেশ বর্ধিতকরণ প্রসঙ্গে একটি আদেশ জারি করে। সেখানে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করে আছে যে উপযুক্ত বিষয় নির্দেশিত হয়ে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের ১১ এপ্রিল ২০২০ খ্রিস্টাব্দে ২৭৫০ নং স্মারকে ধারাবাহিকতায় পুনরায় উল্লেখ করা যাচ্ছে যে সকল মামলা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা/স্থিতিবস্থা/ স্থগিতাদেশ এর আদেশ প্রদান করা হয়েছে, সে সকল মামলার আদেশের কার্যকারিতা উচ্চ আদালত পূর্ণাঙ্গ রূপে খোলার তারিখ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে বলে গণ্য করা হবে। কিন্তু উচ্চ আদালত পূর্ণাঙ্গ খোলার পূর্বে আদালতের নির্দেশ  অমান্য করে গত ৫ সেপ্টেম্বর শনিবার নারায়নগঞ্জের রেলকর্মকর্তা ইকবাল এবং ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান পাওয়ার কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন অফ চায়না লিমিটেড p.r chaina যৌথ উদ্যোগে মহামান্য হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মরহুম হারুনুর রশিদ খানের লীজকৃত সম্পত্তির উপর নির্মিত ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানটি ভেঙ্গে উচ্ছেদ করে।
উচ্ছেদ কালীন সময় রেলের কর্মকর্তার সাথে কোন ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ না থাকলেও তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে আইন বহির্ভূতভাবে এই প্রতিষ্ঠানটি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয়।
এ বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত আজাদ খান জানান, বাংলাদেশ রেলওয়ের কাছ থেকে লিজ নিয়ে সুনামের সহিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছি।
কিন্তু রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ কোন ধরনের নোটিশ না দিয়ে উচ্চ আদালত পূর্ণাঙ্গ খোলার পূর্বে ,,,মাননীয় উচ্চ আদালতের নির্দেশ  অমান্য করে অন্যায় ভাবে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভেঙ্গে উচ্ছেদ করে দেয়। রেলওয়ের কর্মকর্তা ইকবালকে তার কর্মস্থল ঢাকা কমলাপুরে গিয়ে বেশ কয়েকবার চাঁদার টাকা দিয়েছেন স্থানীয় লিজ প্রাপ্তি ব্যবসায়ীরা। কিন্তু তিনি তার চাহিদা মাফিক চাঁদার টাকা না পাওয়ার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে অন্যায় ভাবে লীজকৃত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি ভেঙে চুরমার করে দেয়। এতে করে প্রায় ৬ কোটি টাকা ক্ষতি সাধন হয়েছে।
এ ঘটনায় আমরা আদালতের শরণাপন্ন হয়ে দোষী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি চালাবো।

এই বিষয়ে রেলের কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইকবালের মুঠোফোনে ফোন করলেও সে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

শাহরিয়ার খান কৌশিক, মো,০১৭১৩৬৮৮৯২০